নানী কিংবা দাদীদের ত্বকের রং এখনো আমাদের মুগ্ধ করে। বয়স বাড়লেও কমেনি ত্বকের উজ্জ্বলতা। বিশুদ্ধ বায়ু, সঠিক খাদ্যভাস, নিয়মতান্ত্রিক জীবন যাপন এর প্রধান শর্ত হলেও কিছু প্রাকৃতিক উপাদান তাদের সৌন্দর্য ধরে রাখতে সাহায্য করেছে। এমন কিছু উপাদান নিয়ে আজকের এই ফিচার।


  নানী কিংবা দাদীদের ত্বকের রং এখনো আমাদের মুগ্ধ করে। বয়স বাড়লেও কমেনি ত্বকের উজ্জ্বলতা। বিশুদ্ধ বায়ু, সঠিক খাদ্যভাস, নিয়মতান্ত্রিক জীবন যাপন এর প্রধান শর্ত হলেও কিছু প্রাকৃতিক উপাদান তাদের সৌন্দর্য ধরে রাখতে সাহায্য করেছে। এমন কিছু উপাদান নিয়ে আজকের এই ফিচার।

১। হলুদ
প্রাচীনকাল থেকে রুপচর্চায় হলুদ ব্যবহার হয়ে আসছে। এর অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টি সেপটিক এবং অ্যান্টি অক্সিডেন্ট উপাদান ত্বকের কালো দাগ দূর করতে সাহায্য করে। ত্বকের ধরন অনুযায়ী হলুদের যেকোনো প্যাক ব্যবহার করতে পারেন। তবে হলুদে অ্যালার্জি থাকলে কম পরিমাণ ব্যবহার করুন।

২। লেবু এবং শসা
বাজারের ব্লিচিং ক্রিম ত্বকের জন্য ক্ষতিকর। লেবু প্রাকৃতিক ব্লিচিং্যের জন্য অন্যন। শসার রস এবং লেবুর রস একসাথে মিশিয়ে একসাথে ব্যবহার করুন। এটি ব্লিচিং-এর মতো কাজ করবে।

৩। লেবুর রস এবং পানি
হুটহাট যেকোনো সময় ত্বকে ব্রণ দেখা দিতে পারে। এই ব্রণের সহজ সমাধান দেবে লেবুর রস। সমপরিমাণ লেবুর রস এবং পানি একসাথে মিশিয়ে নিন। এটি ব্রণের উপর ব্যবহার করুন। লেবুর অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান ব্রণ দ্রুত দূর করতে সাহায্য করে।

৪। আলুর রস
চোখের নিচের কালো দাগ দূর করতে আলুর রস বেশ কার্যকর। শুধু চোখের নিচের কালো দাগ নয় চোখের ফোলা ভাবও দূর করে দেয় আলুর রস। আলুর রস চোখের নিচে দিয়ে রাখুন ৫-১০ মিনিট। তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

৫। আমলকির জাদু
চুলের যত্নে আমলকি জাদুর মতো কাজ করে। প্রতিদিন দুটি বা তিনটি আমলকি খাওয়ার চেষ্টা করুন। এমনকি চুলে আমলকির রস ব্যবহার করতে পারেন।  এটি চুল পড়া রোধ করে খুশকি প্রতিরোধ করে থাকে।

৬। মেথি
এক মুঠো মেথি সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। পরেরদিন সেটি পেস্ট করে চুলে ব্যবহার করুন। এটি চুলের গোড়া মজবুত করে নতুন চুল গোজাতে সাহায্য করবে।

৭। গাজরের রস
চুল পাকা রোধ করতে প্রতিদিন এক গ্লাস করে গাজরের রস পান করুন। এতে থাকা বিভিন্ন উপাদান শরীরে পুষ্টি যোগাতে সাহায্য করে। গাজরের রস শুধু চুল পাকা রোধ করে না এটি চোখের জ্যোতি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

৮। বেসন
বেসনের সাথে দুধ বা পানি একসাথে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এটি ত্বকে ব্যবহার করুন। শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

৯। শুষ্ক ত্বকের জন্য টকদই
শুষ্ক ত্বকের অধিকারীরা টকদই ব্যবহার করতে পারেন। ঠান্ডা টকদই ত্বকে ব্যবহার করুন। তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি ত্বক নরম কোমল করে তোলে।

সূত্র: স্টাইল ক্রেজ

Post A Comment: