কুমিল্লার চান্দিনায় পুলিশের হাতে আটক জঙ্গি মাহমুদুল হাসান আস্তানা গাড়ে চট্টগ্রামের মিরসরাই পৌর এলাকার একটি বাড়িতে। রিদোয়ান মঞ্জিল নামের ওই বাড়িটি তার বোন ও দুলাভাই মিলে ৯ হাজার টাকায় ভাড়া নেয়। তাদের সঙ্গে থাকতো এক বছর বয়সের একটি শিশু। গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে তারা এখানে থাকতে শুরু করে।
Mirasaraiye-militant-hideouts



কুমিল্লার চান্দিনায় পুলিশের হাতে আটক জঙ্গি মাহমুদুল হাসান আস্তানা গাড়ে চট্টগ্রামের মিরসরাই পৌর এলাকার একটি বাড়িতে। রিদোয়ান মঞ্জিল নামের ওই বাড়িটি তার বোন ও দুলাভাই মিলে ৯ হাজার টাকায় ভাড়া নেয়। তাদের সঙ্গে থাকতো এক বছর বয়সের একটি শিশু। গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে তারা এখানে থাকতে শুরু করে।


মঙ্গলবার (৭ মার্চ) দিবাগত রাত পোনে ১২টার দিকে আটক হাসানকে নিয়ে এলাকার পূর্ব গোভানীয়া গ্রামের রিদোয়ান মঞ্জিল নামের বাড়িটিতে অভিযান চালায় কাউন্টার টেররিজম ইউনিটসহ পুলিশের একাধিক দল। তারা বাড়ির ভেতরে প্রবেশ করে বিপুল পরিমাণ শক্তিশালী গ্রেনেড, বোমা তৈরির সরঞ্জাম, চাপাতি, জঙ্গিদের ব্যবহৃত কালো পাঞ্চাবি, ব্যাগ ও বিভিন্ন জিনিসপত্র জব্দ করে।

পুলিশ জানায়, গত মঙ্গলবার (৭ মার্চ) সকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চান্দিনা উপজেলার কুটুম্বপুর এলাকায় চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী শ্যামলী বাসে তল্লাশি চালানোর সময় মাহমুদুল হাসান (২৪) ও জসীম উদ্দিন (২২) নামের দুই যুবককে আটক করা হয়। আটক ওই দুই যুবককে জঙ্গি তৎপরতার সঙ্গে জড়িত বলে সন্দেহ হলে কাউন্টার টেররিজম ইউনিটসহ পুলিশের একাধিক বিশেষ দল তাদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরে ওইদিন দিবাগত রাতে আটক হাসানকে নিয়ে চট্টগ্রাম জেলার বিভিন্ন স্থানে জঙ্গিদের সম্ভাব্য কয়েকটি আস্তানায় হানা দেয় পুলিশ। রাত পৌনে ১২টায় হানা দেয় মিরসরাই পৌর সদরের পূর্ব গোভানীয়া গ্রামের রিদোয়ান মঞ্জিলে। সেখানে প্রথমে বাড়ির মালিক রিদোয়ানুল হককে জিঙ্গাসাবাদ করে পুলিশ। পরে তাকে নিয়ে বাড়ির নিচতলার একটি ফ্ল্যাটে অভিযান চালালে সন্ধান মেলে জঙ্গি আস্তানার। এসময় ওই ফ্ল্যাটের দুটি কক্ষে পাওয়া যায় ছোটবড় মিলে ২৯টি শক্তিশালী গ্রেনেড, ২২টি প্যাকেটে ১১ কেজি বিস্ফোরক দ্রব্য, ৪০টি জেল, ৯টি চাপাতি, ৫টি কালো রঙের পাঞ্জাবি, একটি আরবি লেখা ব্যানার, জঙ্গিদের ব্যবহৃত কয়েকটি জার্নি-ব্যাগসহ আরো বেশকিছু বোমা তৈরির সরঞ্জাম। অভিযানশেষে পুলিশ এসব জব্দ করে বাড়িটি সিলগালা করে দেয়।

বুধবার সকালে সরেজমিন ঘটনাস্থলে গিয়ে বাড়ির মালিক রিদোয়ানুল হকের সাথে কথা বললে তিনি জানান, ‘গত ১ ফেব্রুয়ারি কামাল উদ্দিন নামের একজন নিজের স্ত্রী ও সন্তানকে নিয়ে থাকার কথা বলে ৯ হাজার টাকায় বাড়ির নিচতলার দুটি কক্ষ ভাড়া নেয়। তার সাথে এক বছরের এক কন্যাশিশু এবং তার স্ত্রী থাকতেন। পরে তার শ্যালক মাহমুদও থাকতেন স্থানীয় এক ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে সাক্ষী রেখে বাড়ি ভাড়া দেয়া হয়।’ ভাড়া দেয়ার সময় তাদের পরিচয়পত্র নিয়েছেন কিনা জানতে চাইলে বাড়ির মালিক জানান, ‘কামাল উদ্দিন নামে একটি জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়েছে। তারা আমাকে বলেছে এখানে তারা কাপড়ের ব্যবসা করে।’

এদিকে গতকাল বুধবার (৮ মার্চ) দেড়টায় চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার নুরে আলম মীনা ঘটনাস্থলে যান। এসময় তিনি একটি প্রেস ব্রিফিং-এর মাধ্যমে সাংবাদিকদের অভিযানের আদ্যোপান্ত জানান।

পুলিশ সুপার জানান, ‘জঙ্গি আস্তানা গড়ে তুলতে কামাল উদ্দিন নামের এক ব্যক্তি ভুয়া পরিচয়ে বাড়িটি ভাড়া নেয়। বাড়ির মালিকের কাছে সে ভুয়া জাতীয় পরিচয়পত্র জমা দেয়। জঙ্গিরা বাড়ির মালিককে কাপড়ের ব্যবসা করার জন্য এখানে থাকে বলে জানায়।’

নুরে আলম মীনা জানান, ‘মাহমুদুল হাসান ও জসীমকে আটক করা হয় কুমিল্লায়। এরপর তাদের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে জেলার কয়েকটি স্থানে অভিযান চালানো হয়েছে। হাসান, জসীম ছাড়াও আরো এক নারীকে আটক করা হয়েছে। মূলত অভিযানটি চালায় ঢাকা থেকে আসা কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট, কুমিল্লা ও চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ।’ এটি জেএমবির জঙ্গি আস্তানা কি না সাংবাদিকেরা জানতে চাইলে পুলিশ সুপার বলেন, ‘কোন্ গ্রুপের আস্তানা এটি বলার সময় এখনো আসেনি। এটি তদন্তের ব্যাপার। তবে এটুকু বলতে পারি এতে আতঙ্কের কিছু নেই।’
প্রেসব্রিফিং চলার সময়ে উপস্থিত ছিলেন, র‌্যাব-৭ ফেনী ক্যাম্পের অধিনায়ক শাফায়াত জামিল ফাহীম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মশিউদ্দৌলা রেজা, মিরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জিয়া আহমদ সুমন, সহকারী পুলিশ সুপার (মিরসরাই সার্কেল) মাহবুবুর রহমান, মিরসরাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান (দায়িত্বপ্রাপ্ত) ইয়াসমিন আক্তার কাকলী, মিরসরাই থানার ওসি সাইরুল ইসলাম।

এদিকে, বুধবার বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) বোমা ডিসপোজাল ইউনিটের সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে জব্দ গ্রেনেড নিষ্ক্রিয় করার কাজ শুরু করেন। সর্বশেষ বিকাল ৪টা পর্যন্ত তিনটি গ্রেনেড নিষ্ক্রিয় করতে সক্ষম হয় পুলিশের বিশেষজ্ঞ দলটি। গ্রেনেডগুলো বিস্ফোরণের সময় প্রকট শব্দে এলাকা প্রকম্পিত হয়ে ওঠে।

Post A Comment: