ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালটি নানা সম্যসায় জর্জরিত হয়ে পড়েছে। প্রতিনিয়ত চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীরা মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন। এ হাসপাতালে ডাক্তারদের সংকট থাকায় কার্যক্রম চলছে নার্স দিয়েই। এতে নানা বিরম্বনার শিকার হচ্ছেন গ্রাম-গঞ্জ থেকে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীরা।

ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালটি নানা সম্যসায় জর্জরিত হয়ে পড়েছে। প্রতিনিয়ত চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীরা মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন। এ হাসপাতালে ডাক্তারদের সংকট থাকায় কার্যক্রম চলছে নার্স দিয়েই। এতে নানা বিরম্বনার শিকার হচ্ছেন গ্রাম-গঞ্জ থেকে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীরা।




হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘ দিন যাবত এ হাসপাতালে ডাক্তার সংকটে ভুগছে। এ সংকট নিরসনে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে একাধিক বার জানিয়েও সুফল মিলেনি।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, রবিবার সকাল ১১টায় বহিঃবিভাগে ২৫ জন রোগী চিকিৎসা সেবা নিতে এসে সরকার নির্ধারিত ফি দিয়ে টিকেট কেটে লাইন দিয়ে দাড়িয়ে রয়েছেন। কিন্তু ডাক্তারদের দেখা মিলছে না। শুধুমাত্র এক জন ডাক্তার আর একজন নার্স রোগী দেখছেন। এতগুলো রোগী দেখতে তাদেরকেও হিমশিম খেতে হচ্ছে। কেউ কেউ আবার নার্স দেখে রোগী না দেখিয়ে বাড়ী ফিরে যাচ্ছেন।

পৌর ২নং ওয়ার্ড থেকে আসা আমবিয়া জানান, আমার ভাইর ছেলেকে ডাক্তার দেখাতে এসেছি। দীর্ঘ সময় টিকেট কেটে দাড়িয়ে রয়েছি। একজন ডাক্তার তার কাছে দীর্ঘ লাইন। আরেক রুমে যেতে বলে সেখানে গিয়ে দেখি নার্স রোগী দেখছে। তাই চলে যাচ্ছি। অনেক কষ্ট করে হাসপাতালে ডাক্তার দেখাতে এসেছি নার্সকে নয় বলেন তিনি।

এ ব্যাপারে নার্স নিরুপমা বলেন, ‘ডাক্তার না থাকায় আমাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে তাই রোগী দেখছি।’

বোরহানউদ্দিন টিএস ডা: জহুরুল ইসলাম শাহিন জানান, রোগীরা অনেক কষ্ট করে হাসপাতালে আসে চিকিৎসা সেবা নিতে। হাসপাতালে ডাক্তার সংকট রয়েছে। রোগীদের কথা চিন্তা করে ডাক্তারদের পাশাপাশি তাই নার্স দিয়েও সাময়িক সেবা দিচ্ছি। উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষকেও বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে।

Post A Comment: