ইংরেজি দৈনিক ‘ডেইলি সান’ এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক, প্রবীণ সাংবাদিক আমির হোসেন আর নেই। ৬ মার্চ সোমবার দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭৩ বছর। তিনি ১৯৪৪ সালের ২৯ ডিসেম্বর জন্মগ্রহন করেন। স্ত্রী, এক মেয়ে ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন এই প্রথিতযশা সাংবাদিক। ৫ মার্চ রোববার দুপুরে রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকাস্থ ডেইলি সান কার্যালয়ে যাওয়ার সময়ে হঠাৎ বুকে ব্যাথা অনুভব করেন আমির হোসেন। এরপর দ্রুত তাকে অ্যাপোলো হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে ভর্তি করা হয় এবং রাতেই লাইফ সাপোর্টে দেওয়া হয়। পরে সোমবার দুপুর ১২টার পরপরই চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। বিশিষ্ট এই সাংবাদিকের জানাজা শেষে তার মরদেহ রাজধানীর বারডেম হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়েছে। আগামীকাল মঙ্গলবার মরহুমের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে তার নিজ জেলা মাদারীপুরে। সেখানে তাকে দাফন করা হবে। আমির হোসেন পাকিস্তান আমলে তার সাংবাদিকতার ক্যারিয়ার শুরু করেন সে সময়ের প্রধান সংবাদপত্র দৈনিক ইত্তেফাক থেকে। এরপর বাংলারবাণী, জয়বাংলা, বাংলাদেশ টুডেসহ বেশ কয়েকটি দৈনিক ও সাপ্তাহিকের সম্পাদকসহ গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন। স্বাধীনবাংলা বেতারকেন্দ্রের একজন নিয়মিত সংবাদ বিশ্লেষকও ছিলেন এই সাহসী সাংবাদিক।



ইংরেজি দৈনিক ‘ডেইলি সান’ এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক, প্রবীণ সাংবাদিক আমির হোসেন আর নেই। ৬ মার্চ সোমবার দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭৩ বছর। তিনি  ১৯৪৪ সালের ২৯ ডিসেম্বর জন্মগ্রহন করেন। স্ত্রী, এক মেয়ে ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন এই প্রথিতযশা সাংবাদিক।

৫ মার্চ রোববার দুপুরে রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকাস্থ ডেইলি সান কার্যালয়ে যাওয়ার সময়ে হঠাৎ বুকে ব্যাথা অনুভব করেন আমির হোসেন। এরপর দ্রুত তাকে অ্যাপোলো হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে ভর্তি করা হয় এবং রাতেই লাইফ সাপোর্টে দেওয়া হয়। পরে সোমবার দুপুর ১২টার পরপরই চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিশিষ্ট এই সাংবাদিকের জানাজা শেষে তার মরদেহ রাজধানীর বারডেম হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়েছে। আগামীকাল মঙ্গলবার মরহুমের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে তার নিজ জেলা মাদারীপুরে। সেখানে তাকে দাফন করা হবে।

আমির হোসেন পাকিস্তান আমলে তার সাংবাদিকতার ক্যারিয়ার শুরু করেন সে সময়ের প্রধান সংবাদপত্র দৈনিক ইত্তেফাক থেকে। এরপর বাংলারবাণী, জয়বাংলা, বাংলাদেশ টুডেসহ বেশ কয়েকটি দৈনিক ও সাপ্তাহিকের সম্পাদকসহ গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন। স্বাধীনবাংলা বেতারকেন্দ্রের একজন নিয়মিত সংবাদ বিশ্লেষকও ছিলেন এই সাহসী সাংবাদিক।

Post A Comment: