ভোলার চরফ্যাশনের আসলামপুর ও চরমাদ্রাজ ইউনিয়নের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কালবৈশাখী ঘূর্ণিঝড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। কয়েক মিনিটের ওই ঘূর্ণিঝড়ে দুটি গ্রামের মসজিদ, মাদ্রসাসহ অর্ধশতাধিক ঘরবাড়ি দুমরে-মুচড়ে গেছে। বসবাড়ি হারিয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে খোলা আকাশের নিচেমানবেতর জীবনযাপন করছে ক্ষতিগ্রস্তরা। ঘূর্ণিঝড়ের দুই দিন অতিবাহিত হলেও এখনো সেখানে কোনো সরকারি সহযোগিতা করা হয়নি।
Caraphyasane cyclone victims living in sub-human
 

ভোলার চরফ্যাশনের আসলামপুর ও চরমাদ্রাজ ইউনিয়নের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কালবৈশাখী ঘূর্ণিঝড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। কয়েক মিনিটের ওই ঘূর্ণিঝড়ে দুটি গ্রামের মসজিদ, মাদ্রসাসহ অর্ধশতাধিক ঘরবাড়ি দুমরে-মুচড়ে গেছে। বসবাড়ি হারিয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে খোলা আকাশের নিচেমানবেতর জীবনযাপন করছে ক্ষতিগ্রস্তরা। ঘূর্ণিঝড়ের দুই দিন অতিবাহিত হলেও এখনো সেখানে কোনো সরকারি সহযোগিতা করা হয়নি।


উপজেলার দুটি ইউনিয়নের ওপর দিয়ে ঘূর্ণিঝড় বয়ে গেলেও এতে বেশি ক্ষতি হয়েছে চরমাদ্রাজ ইউনিয়নের। চরমাদ্রাজ ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের চরনাজিম উদ্দিন গ্রামের মফিজ বেপারী জানান, ঝড়ের কবলে পড়ে তার বসতঘরটি সম্পূর্ণ রূপে বিধ্বস্ত হয়েছে। পরিবার পরিজন নিয়ে তিনি এখন খোলা আকাশের নিচেবসবাস করছেন। একই গ্রামের বিবি ফাতেমা জানান, কিছু বুঝে উঠার আগেই তার ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। ঘরের নিচেই সবাই চাপা পড়েছে। পরে কোন মতে বের হয়েছে।

চরমাদ্রাজ ফাজিল মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নিজাম উদ্দিন হুমায়ুন জানান, ঝড়ে কবলে পড়ে মাদ্রাটি বিধ্বস্ত হয়েছে। এতে পাঠদান ব্যহত হচ্ছে।

Caraphyasane cyclone victims living in sub-human

গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত জাহাঙ্গীর হোসেন, কাদির মাঝি, বেগম, দুলাল মাঝি, আঃ শহিদ, মোঃ মিজান, সেকান্তর, আলাউদ্দিন গোলদার, মনির গোলদার, আলমগীর মাঝি, সাত্তার সিকদার, হারুন মাতাব্বর ও মাসুদ ৭নং ওয়ার্ডে ও চর আফজাল গ্রামের অর্ধশতাধিক ঘর বাড়ি বিধস্ত হয়।

চরফ্যাশন উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মনোয়ার হোসেন বলেন, ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের নামের তালিকা করা হয়েছে। দুই একদিনের মধ্যে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হবে।

গত ৭ মার্চ মঙ্গলবার বিকেলে কালবৈশাখী ঝড়ে ব্যাপাক ক্ষয়ক্ষতি হয়। এতে মো. মোর্শেদ নামে এক মাদ্রাসা ছাত্র নিহত হয়েছে। এছাড়া আহত হয়েছেন আরো অন্তত ৫ জন।

Post A Comment: