জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে নগরীর আকবর শাহ থানার কর্নেল হাট সিডিএ আবাসিক এলাকার এক নম্বর সড়কে অবস্থিত একটি বাড়ি ও উত্তর কাট্টলি এলাকার ইশান মহাজন সড়কে অবস্থিত আরও একটি বাড়িতে তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। আড়াই ঘণ্টার অভিযানে জঙ্গি বা বিস্ফোরক জাতীয় কিছু পাওয়া যায়নি।
 

জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে নগরীর আকবর শাহ থানার কর্নেল হাট সিডিএ আবাসিক এলাকার এক নম্বর সড়কে অবস্থিত একটি বাড়ি ও উত্তর কাট্টলি এলাকার ইশান মহাজন সড়কে অবস্থিত আরও একটি বাড়িতে তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। আড়াই ঘণ্টার অভিযানে জঙ্গি বা বিস্ফোরক জাতীয় কিছু পাওয়া যায়নি।

গতকাল সোমবার বিকেল পৌনে চারটা থেকে দুটি বাড়ি ঘিরে এই তল্লাশি শুরু করে পুলিশের একাধিক টিম। সন্ধ্যা সোয়া ছয়টায় তল্লাশি শেষ হয়।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে সিডিএ আবাসিক এলাকার প্রভাতি শিক্ষা নিকেতনের পাশে অবস্থিত এবং অন্য বাড়িটি মহাসড়ক থেকে দুই কিলোমিটার দূরে উত্তর কাট্টলি এলাকার ইশান মহাজন সড়কে অবস্থিত।

পুলিশ জানায়, ইশান মহাজন সড়কে অবস্থিত পাঁচতলা বাড়িটি কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের সাবেক জিএম ঋশি সাহার মালিকানাধীন।
সীতাকু-ের নামারবাজার এলাকার সাধনকুটির নামে বাড়ির জঙ্গি আস্তানা থেকে আটক দুই জঙ্গির মধ্যে মহিলা জঙ্গি পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে বলেন, আকবর শাহ থানা এলাকায় তাদের আরও সঙ্গীরা অবস্থান করছেন। এই তথ্যের ভিত্তিতে এই তল্লাশি চালায় পুলিশ।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (পশ্চিম) ফারুকুল হকের নেতৃত্বে সোয়াট টিম, বোমা নিষ্ক্রিয়করণ ইউনিট, আকবর শাহ থানা ও রিজার্ভ ফোর্সসহ প্রায় দেড় শতাধিক পুলিশ অংশ নেন। তল্লাশিশেষে উপ পুলিশ কমিশনার ফারুকুল হক বলেন, ৮ মার্চ থেকে জঙ্গিবিরোধী অভিযান চলছে। এই অভিযানের আওতায় আমরা কর্নেলহাটে এবং উত্তর কাট্টলিতে অভিযান চালিয়েছি। পুরো নগরীতে আমাদের জঙ্গিবিরোধী অভিযান অব্যাহত থাকবে।

ওই বাড়ির ভাড়াটিয়া পিডিবির সাবেক কর্মকর্তা সুনীল কান্তি সেন বলেন, আমরা সবার পরিচয়পত্র বাড়ির মালিকের হাতে জমা আছে। এই বাড়িতে কখনও সন্দেহজনক কিছু আমি দেখিনি। সমাজসেবা অধিদপ্তরের সাবেক কর্মকর্তা দিলীপ দাশ বলেন, পুলিশর অভিযানের খবর পেয়ে এসেছি। এই এলাকায় রাষ্ট্রবিরোধী কোন কর্মকা- হয় তাহলে আমরা সব ধরনের সহযোগিতা পুলিশকে করব।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (পশ্চিম) নাজমুল হাসান বলেন, ‘এখানে দুটি জঙ্গি আস্তনা আছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে আমরা অভিযান চালাতে এসেছি। তল্লাশি চালিয়েছি। তবে এরকম কিছু পাওয়া যায়নি।’

প্রসঙ্গত, গত ১৫ মার্চ দুপুরে সীতাকু- পৌরসভার লামারবাজার আমিরাবাদের সাধনকুটির থেকে এক নারীসহ দুই জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে কলেজ রোডের চৌধুরীপাড়ার প্রেমতলা এলাকার ছায়ানীড় ভবনের জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালায় পুলিশ। বুধবার বিকেল তিনটা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ছায়ানীড় ভবনে ‘অপারেশন এসল্ট-১৬’ চালায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ২০ ঘণ্টার এ অভিযানে ২০ জন জিম্মিকে উদ্ধার করা হয়। এছাড়া চার জঙ্গিসহ পাঁচজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। অভিযানে দুই পুলিশ সদস্য আহত হন।

Post A Comment: