জঙ্গিদের আত্মসমর্পণের আহ্বান জানালে তারা গুলি ছুড়ে জবাব দেয়। সেখানে পুলিশ, র‍্যাব ছাড়াও সেনাবাহিনীর কয়েকজন কর্মকর্তা রয়েছেন। মৌলভীবাজার পৌরসভার মেয়র ফজলুর রহমান বড়হাট আবুশাহ দাখিল মাদ্রাসা গলিতে থাকা জঙ্গি আস্তানা এলাকা ঘুরে এসে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।
 আত্মসমর্পণ করতে বললে জঙ্গিরা গুলি ছোড়ে : মেয়র


জঙ্গিদের আত্মসমর্পণের আহ্বান জানালে তারা গুলি ছুড়ে জবাব দেয়। সেখানে পুলিশ, র‍্যাব ছাড়াও সেনাবাহিনীর কয়েকজন কর্মকর্তা রয়েছেন। মৌলভীবাজার পৌরসভার মেয়র ফজলুর রহমান বড়হাট আবুশাহ দাখিল মাদ্রাসা গলিতে থাকা জঙ্গি আস্তানা এলাকা ঘুরে এসে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

মেয়র আরও বলেন, জঙ্গিদের কীভাবে নির্মূল করা যায়, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা আলোচনা করে তা ঠিক করবেন।

জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে গতকাল মঙ্গলবার রাত থেকে মৌলভীবাজারের পৃথক দুটি স্থানে দুটি বাড়ি ঘিরে রেখেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। একটি বাড়ি মৌলভীবাজার পৌরসভার বড়হাট এলাকায় অবস্থিত। অপর বাড়িটির অবস্থান সদর উপজেলার খলিলপুর ইউনিয়নের নাসিরপুর এলাকায়। দুটি স্থানের মধ্যে দূরত্ব প্রায় ২০ কিলোমিটার।

আজ বুধবার বেলা দুইটা থেকে মৌলভীবাজার পৌরসভার বড়হাট ও সংশ্লিষ্ট কুসুমবাগ এলাকা এবং সদর উপজেলার খলিলপুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় থেকে পূর্ব দিকে দুই কিলোমিটার এলাকায় (নাসিরপুর গ্রামসহ) ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত তা বলবৎ থাকবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সাংবাদিকদের বলেছেন, দুটি জঙ্গি আস্তানার মধ্যে একটিতে তিন-চারজন, আরেকটিতে আরও কিছু বেশি জঙ্গি থাকতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে।

মন্ত্রী জানান, পুলিশের বিশেষ ইউনিট সোয়াত বাহিনী রওনা হয়েছে। তারা সেখানে গেলেই কাজ শুরু হবে।

মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহ জালাল বলেন, নাসিরপুরের জঙ্গি আস্তানা থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে গ্রেনেড ছোড়া হয়েছে।

নাসিরপুরের জঙ্গি আস্তানার কাছ থেকে থেমে থেমে গুলির শব্দ শুনতে পাওয়ার তথ্য জানিয়েছেন স্থানীয় লোকজন।

দুপুর পৌনে ১২টার দিকে নাসিরপুরে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে মাইকিং করতে দেখা যায়। সন্দেহভাজন জঙ্গি আস্তানার আশপাশ থেকে লোকজনকে নিরাপদ দূরত্বে অবস্থান করতে বলা হয়।

Post A Comment: