কথা ছিল আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানে মুক্তি পাবে শাহরুখ খানের ‘রইস’। তা নিয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত ছিল রইস-টিম। সম্প্রতি ভিডিও কলের মাধ্যমে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ছবির অভিনেত্রী মাহিরা খান জানান, ‘রইস’ এর মুক্তির জন্য পাকিস্তানের মানুষ অপেক্ষা করে রয়েছেন। পাকিস্তানে শাহরুখের ভক্ত বেশি হলেও পাকিস্তানের সেন্সর বোর্ড চাইছে না সে দেশে ‘রইস’ মুক্তি পাক। তাই ‘রইস’ এর পাকিস্তান যাত্রা স্থগিত। সেই হিসেবে বড় ধাক্কা খেলো 'রইস'। কিন্তু পাকিস্তানে কেন নিষিদ্ধ হলো ছবিটি! কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে, শাহরুখ-মাহিরা অভিনীত ‘রইস’ ছবিতে ইসলাম নিয়ে নেতিবাচক বার্তা রয়েছে। মুসলিমদের অপরাধী হিসেবে চিত্রায়িত করা হয়েছে বলেই পাকিস্তানের সেন্সর বোর্ড আটকে দিয়েছে ‘রইস’ এর মুক্তি। সূত্রের খবর, পাকিস্তানের সেন্সর বোর্ড মনে করছে, রইসে ইসলাম ধর্মকে ছোট করা হয়েছে। মুসলিমদের অপরাধী, সন্ত্রাসবাদী হিসাবে তুলে ধরেছেন পরিচালক। তাই এই ছবি পাকিস্তানে মুক্তি পেলে তা দেশবাসীর মনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া ফেলতে পারে। উরির ঘটনার পর এমনিতেই ভারত-পাক সম্পর্ক, পাকিস্তানি শিল্পীদের ভারতে নিষেধাজ্ঞা এমনই বিভিন্ন পরিস্থিতি এবং সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে সময় এগিয়ে যাচ্ছিলো৷ তবে কাবিল পাকিস্তানে প্রদর্শিত হওয়ার পর রইস নিয়েও আশায় বুক বেঁধেছিলেন অনেকেই৷ কিন্তু পাকিস্তান সেন্সর বোর্ডের সিদ্ধান্তে আবারও হতাশ ‘রইস’ ছবির টিম৷ সূত্র- ডেকান ক্রনিকলস

  কথা ছিল আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানে মুক্তি পাবে শাহরুখ খানের ‘রইস’। তা নিয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত ছিল রইস-টিম। সম্প্রতি ভিডিও কলের মাধ্যমে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ছবির অভিনেত্রী মাহিরা খান জানান, ‘রইস’ এর মুক্তির জন্য পাকিস্তানের মানুষ অপেক্ষা করে রয়েছেন। পাকিস্তানে শাহরুখের ভক্ত বেশি হলেও পাকিস্তানের সেন্সর বোর্ড চাইছে না সে দেশে ‘রইস’ মুক্তি পাক। তাই ‘রইস’ এর পাকিস্তান যাত্রা স্থগিত।


সেই হিসেবে বড় ধাক্কা খেলো 'রইস'। কিন্তু পাকিস্তানে কেন নিষিদ্ধ হলো ছবিটি! কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে, শাহরুখ-মাহিরা অভিনীত ‘রইস’ ছবিতে ইসলাম নিয়ে নেতিবাচক বার্তা রয়েছে। মুসলিমদের অপরাধী হিসেবে চিত্রায়িত করা হয়েছে বলেই পাকিস্তানের সেন্সর বোর্ড আটকে দিয়েছে ‘রইস’ এর মুক্তি।

সূত্রের খবর, পাকিস্তানের সেন্সর বোর্ড মনে করছে, রইসে ইসলাম ধর্মকে ছোট করা হয়েছে। মুসলিমদের অপরাধী, সন্ত্রাসবাদী হিসাবে তুলে ধরেছেন পরিচালক। তাই এই ছবি পাকিস্তানে মুক্তি পেলে তা দেশবাসীর মনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া ফেলতে পারে।

উরির ঘটনার পর এমনিতেই ভারত-পাক সম্পর্ক, পাকিস্তানি শিল্পীদের ভারতে নিষেধাজ্ঞা এমনই বিভিন্ন পরিস্থিতি এবং সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে সময় এগিয়ে যাচ্ছিলো৷ তবে কাবিল পাকিস্তানে প্রদর্শিত হওয়ার পর রইস নিয়েও আশায় বুক বেঁধেছিলেন অনেকেই৷ কিন্তু পাকিস্তান সেন্সর বোর্ডের সিদ্ধান্তে আবারও হতাশ ‘রইস’ ছবির টিম৷ 
সূত্র- ডেকান ক্রনিকলস

Post A Comment: