মেথি বীজ এমন একটি ভেষজ উদ্ভিদ যার পাতা এবং বীজের ব্যবহার হয়ে আসছে যুগ যুগ ধরে। ঐতিহ্যগতভাবেই মেথি বীজ ব্যবহৃত হয়ে আসছে ভালো স্বাস্থ্য ও শক্তিশালী চুলের জন্য। সাম্প্রতিক গবেষণায় জানা গেছে যে মেথির আরো অনেক উপকারিতা আছে। খাদ্যের গন্ধ বৃদ্ধি করা থেকে শুরু করে ডায়াবেটিক নিয়ন্ত্রণ সহ নানাবিধ উপকারতা আছে মেথি বীজের। মেথি বীজের নানাবিধ স্বাস্থ্য উপকারিতার বিষয়েই জানবো আজকের ফিচারে।


 মেথি বীজ এমন একটি ভেষজ উদ্ভিদ যার পাতা এবং বীজের ব্যবহার হয়ে আসছে যুগ যুগ ধরে। ঐতিহ্যগতভাবেই মেথি বীজ ব্যবহৃত হয়ে আসছে ভালো স্বাস্থ্য ও শক্তিশালী চুলের জন্য। সাম্প্রতিক গবেষণায় জানা গেছে যে মেথির আরো অনেক উপকারিতা আছে। খাদ্যের গন্ধ বৃদ্ধি করা থেকে শুরু করে ডায়াবেটিক নিয়ন্ত্রণ সহ নানাবিধ উপকারতা আছে মেথি বীজের। মেথি বীজের নানাবিধ স্বাস্থ্য উপকারিতার বিষয়েই জানবো আজকের ফিচারে।


১। বয়স রোধী প্রভাব আছে
ত্বকের ক্ষেত্রে মেথি বীজের চমৎকার উপকারিতা লক্ষ্য করা যায়। বলিরেখা ও ফাইন লাইন এর মত বয়সের লক্ষণগুলো দূর করতে সাহায্য করে মেথি বীজ। এজন্য ১ টেবিলচামচ মেথি বীজ সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। সকালে ভেজানো মেথি বীজ এবং ১ টেবিল চামচ টকদই ভালো করে পিষে মসৃণ পেস্ট তৈরি করে নিন। এই মিশ্রণটি আপনার মুখে লাগিয়ে নিন। ৩০ মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
অঙ্কুরিত মেথি বীজ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সক্রিয়তা এবং ফ্রি র‍্যাডিকেলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে সাহায্য করে যা বয়স বৃদ্ধির প্রক্রিয়াকে দ্রুত করে।  দই এ ল্যাক্টিক এসিড থাকে যা ত্বককে এক্সফোলিয়েট হতে সাহায্য করে। এছাড়াও ত্বককে মসৃণ ও নরম হতেও সাহায্য করে মেথি বীজ।


২। খুশকির বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে
খুশকি হওয়া খুবই সাধারণ একটি সমস্যা। খুশকি দূর করার বিভিন্ন উপায় আছে। এর মধ্যে সবচেয়ে ভালো এবং কার্যকরী উপায় হচ্ছে মেথি বীজ ব্যবহার করা। ড্রাই স্কাল্প এবং ডারমাটাইটিস নিরাময়েও অনেক কার্যকরী মেথি বীজ। এছাড়াও চুল পড়া রোধ করে, চুলের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে এবং অকালে চুল পাকা রোধ করে। ১ কাপ পানিতে ২ টেবিলচামচ মেথি বীজ দিয়ে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। সকালে এই মেথি বীজ ভালো করে পেস্ট করে নিন। মেথির পেস্ট চুলের গোড়ায় ও মাথার তালুতে ভালো করে ম্যাসাজ করুন। ৩০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।


৩। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে
প্রায়ই ডায়াবেটিক রোগীদের খাদ্যতালিকায় মেথি বীজ যোগ করার পরামর্শ দেয়া হয়, কারণ এটি তাদের স্বাস্থ্যের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলে। ডায়াবেটিক রোগীদের উপর মেথি বীজের প্রভাব নিয়ে করা গবেষণায় অনুকূল ফলাফল পাওয়া গেছে। মেথি বীজ রক্তের চিনির মাত্রা নিয়ন্ত্রণে এবং ইনসুলিন রেজিস্টেন্স কমাতে সাহায্য করে।


৪। হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধ করে
কার্ডিওভাস্কুলার স্বাস্থ্যের উপর তাৎপর্যপূর্ণ প্রভাব ফেলে মেথি বীজ। সারা বিশ্বে হার্ট অ্যাটাকে  মৃত্যুর হার অনেক বেশি। যখন হৃদপিণ্ডে রক্ত সরবরাহকারী ধমনীতে বাঁধার সৃষ্টি হয় তখনই হয় হার্ট অ্যাটাক। মেথি বীজ হার্টের ক্ষতি হওয়া প্রতিরোধ করে। হার্ট অ্যাটাকের সময় যে অক্সিডেটিভ স্ট্রেস তৈরি হয় তার বিরুদ্ধে কাজ করে মেথি বীজ।


৫। বুকের দুধের পরিমাণ বৃদ্ধি করে
এশিয়া মহাদেশে নারীরা বাচ্চা প্রসবের পরে বুকের দুধের পরিমাণ বৃদ্ধি করার জন্য মেথি বীজ গ্রহণ করে থাকেন। যে মায়েরা তাদের সন্তানদের দুধ পান করান তাদের বুকের দুধের পরিমাণ বৃদ্ধি করে মেথি বীজে থাকা ফাইটোইস্ট্রোজেন। মেথি বীজের চা পান করলে মায়েদের বুকের দুধের পরিমাণ যেমন বৃদ্ধি পায় তেমনি শিশুর ওজন বৃদ্ধিও উৎসাহিত হয়।
এছাড়াও মেথি বীজ ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে, মাসিকের ব্যথা কমায়, কোলেস্টেরল কমায়, আরথ্রাইটিসের ব্যথা কমায়, হজমে সাহায্য করে, ওজন কমতে সাহায্য করে, কিডনির কাজের উন্নতি ঘটায় এবং যকৃতকে সুরক্ষা দেয়।

সূত্র : স্টাইলক্রেজ

Post A Comment: