বর্তমান সময়ে ফেসবুকের মাথাপিছু আয় বৃদ্ধির বর্ণনাচিত্র। ছবি: ফেসবুক।


 যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় গ্রাহক প্রতি ফেসবুকের আয় ২০ ডলার 

 ফেসবুকের বিজ্ঞাপন ব্যবসা দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলছে। উত্তর আমেরিকার ব্যবহারকারীদের কাছে নিজেদের পণ্যের প্রচারের জন্য বিপণনকারীরা প্রচুর পরিমাণে ডলার খরচ করছে।

বছরের চতুর্থ প্রান্তিকে ফেসবুক জানিয়েছিল, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং কানাডার ফেসবুক ব্যবহারকারী প্রতি প্রতিষ্ঠানটির গড় আয় ১৯.৮১ মার্কিন ডলার। ২০১৫ সালের সর্বশেষ তিন মাসে গ্রাহক গড় আয় ছিল ১৩.৭০ মার্কিন ডলার। অর্থ্যাৎ, গড় আয় বেড়েছে। ফেসবুকের মাথাপিছু আয় শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে উত্তর আমেরিকার মাথাপিছু আয়ও বেড়েছে। ২০১২ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে ফেসবুকের গড় আয় ছিল ৪.০৮ মার্কিন ডলার।
২০১২ সাল থেকে ফেসবুকের মাথাপিছু গড় আয়ের বর্ণনাচিত্র। ছবি: ফেসবুক।

বার্ষিক ভিত্তিতে হিসাব করলে ফেসবুকের মাথাপিছু গড় আয়ের বৃদ্ধি আরও ভালোভাবে লক্ষ্য করা যায়। ২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্র এবং কানাডার ফেসবুক ব্যবহারকারী প্রতি প্রতিষ্ঠানটির আয় হয়েছে ৬২.২৩ মার্কিন ডলার। অথচ ২০১২ সালে দুই দেশ মিলিয়ে ফেসবুকের ব্যবহারকারী প্রতি গড় আয় ছিল ১৩.৫৮ মার্কিন ডলার।

ফেসবুকের মাথাপিছু গড় আয়ের অনেক পরিবর্তন এসেছে। ফেসবুকের রাজস্বের বেশিরভাগই এখন মোবাইল বিজ্ঞাপন ব্যবসার মাধ্যমে এসে থাকে। ২০১৬ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে উত্তর আমেরিকা থেকে ওঠা ১৯.৮১ মার্কিন ডলার মাথাপিছু গড় আয়ের ৫৩ শতাংশ এসেছে ফেসবুকের পেমেন্ট ব্যবসা থেকে। অথচ ফেসবুক যাত্রার প্রথম দিকে প্রতিষ্ঠানটি মোবাইল বিজ্ঞাপন ব্যবসার কোন অস্তিত্ত্ব ছিল না। স্মার্টফোনের মাধ্যমে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের কাছে বিপণন ব্যবসায়ীদের পৌঁছানোর কৌশল উদ্ভাবন করে ফেসবুক।

ফেসবুকের বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্র এবং কানাডাজুড়ে ২৩১ মিলিয়ন মাসিক ব্যবহারকারী আছে। বিশ্বব্যাপী ফেসবুকের আয় বাড়ছে। পুরো বিশ্বজুড়ে ২০১৬ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে ফেসবুক মাথাপিছু ৪.৮৩ মার্কিন ডলার আয় করেছে যা গত বছরের থেকে এক ডলার বেশি। 

বর্তমান সময়ে ফেসবুকের মাথাপিছু আয় বৃদ্ধির বর্ণনাচিত্র। ছবি: ফেসবুক। 


Post A Comment: