সৌর জগতের সন্নিকটে একটি নক্ষত্রের চারপাশে ঘূর্ণায়মান পৃথিবীর সমান আকৃতির অন্তত সাতটি গ্রহের সন্ধান পেয়েছেন জ‌্যোতির্বিজ্ঞানীরা। নতুন সাত গ্রহ আবিষ্কারের এই খবর ২২ ফেব্রুয়ারি বুধবার জার্নাল ন্যাচারে প্রকাশিত হয়। পাশাপাশি ওয়াশিংটনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় মহাকাশ সংস্থা নাসার সদর দফতরে সংবাদ সম্মেলন করেও এ আবিষ্কারের ঘোষণা দেওয়া হয়। পৃথিবী থেকে ৪০ আলোকবর্ষ দূরের এসব গ্রহের আকার এবং ভর অনেকটা পৃথিবীর মতো। আর সাতটি গ্রহের মধ্যে তিনটিতে প্রাণের বিকাশে সহায়তাকারী মহাসাগর থাকার উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে। গবেষণায় নেতৃত্ব দেওয়া বেলজিয়ামের লিজ বিশ্ববিদ‌্যালয়ের জ‌্যোতির্বিদ মাইকেল গালোন বলেন, এবারই প্রথমবারের মতো একটি নক্ষত্র ঘিরে থাকা এতগুলো গ্রহ পাওয়া গেছে। গ্রহগুলো যে নক্ষত্রটি ঘিরে আবর্তিত হচ্ছে, অতি শীতল ক্ষুদ্রাকৃতির ওই নক্ষত্রের নাম দেওয়া হয়েছে টিআরএপিপিআইএসটি-১। বিজ্ঞানীরা বলছেন, এই নক্ষত্রকে ঘিরে আবর্তিত গ্রহগুলো শক্ত গঠনের; সেগুলো বৃহস্পতির মতো গ‌্যাসীয় নয়, বরং শিলা দ্বারা গঠিত হতে পারে। বিজ্ঞানীরা আরও বলছেন, টিআরএপিপিআইএসটি-১ ই, এফ ও জি নামে তিনটি গ্রহ ‘বাসযোগ‌্য এলাকায়’, এগুলোতে মহাসাগর থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। কোনো নক্ষত্রের চারপাশে ঘূর্ণায়মান গ্রহের নির্দিষ্ট এমন এলাকা, যেখানে পানি থাকার সম্ভাবনা থাকে; এমন এলাকাকে বাসযোগ্য এলাকা বলা হয়েছে। গবেষকদের বিশ্বাস, টিআরএপিপিআইএসটি-১ এফ প্রাণধারণের জন‌্য সবচেয়ে উপযুক্ত। এটি পৃথিবীর চেয়ে কিছুটা শীতল। সঠিক বায়ুমণ্ডল ও পর্যাপ্ত গ্রিন হাউজ গ‌্যাসসহ এটা প্রাণের জন‌্য উপযুক্ত হতে পারে।

নতুন সন্ধান পাওয়া সাত গ্রহ। ছবি: সংগৃহীত
নতুন সন্ধান পাওয়া সাত গ্রহ। ছবি: সংগৃহীত

   সৌর জগতের সন্নিকটে একটি নক্ষত্রের চারপাশে ঘূর্ণায়মান পৃথিবীর সমান আকৃতির অন্তত সাতটি গ্রহের সন্ধান পেয়েছেন জ‌্যোতির্বিজ্ঞানীরা।


নতুন সাত গ্রহ আবিষ্কারের এই খবর ২২ ফেব্রুয়ারি বুধবার জার্নাল ন্যাচারে প্রকাশিত হয়। পাশাপাশি ওয়াশিংটনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় মহাকাশ সংস্থা নাসার সদর দফতরে সংবাদ সম্মেলন করেও এ আবিষ্কারের ঘোষণা দেওয়া হয়।


পৃথিবী থেকে ৪০ আলোকবর্ষ দূরের এসব গ্রহের আকার এবং ভর অনেকটা পৃথিবীর মতো। আর সাতটি গ্রহের মধ্যে তিনটিতে প্রাণের বিকাশে সহায়তাকারী মহাসাগর থাকার উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে।



গবেষণায় নেতৃত্ব দেওয়া বেলজিয়ামের লিজ বিশ্ববিদ‌্যালয়ের জ‌্যোতির্বিদ মাইকেল গালোন বলেন, এবারই প্রথমবারের মতো একটি নক্ষত্র ঘিরে থাকা এতগুলো গ্রহ পাওয়া গেছে।


গ্রহগুলো যে নক্ষত্রটি ঘিরে আবর্তিত হচ্ছে, অতি শীতল ক্ষুদ্রাকৃতির ওই নক্ষত্রের নাম দেওয়া হয়েছে টিআরএপিপিআইএসটি-১। বিজ্ঞানীরা বলছেন, এই নক্ষত্রকে ঘিরে আবর্তিত গ্রহগুলো শক্ত গঠনের; সেগুলো বৃহস্পতির মতো গ‌্যাসীয় নয়, বরং শিলা দ্বারা গঠিত হতে পারে।


বিজ্ঞানীরা আরও বলছেন, টিআরএপিপিআইএসটি-১ ই, এফ ও জি নামে তিনটি গ্রহ ‘বাসযোগ‌্য এলাকায়’, এগুলোতে মহাসাগর থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। কোনো নক্ষত্রের চারপাশে ঘূর্ণায়মান গ্রহের নির্দিষ্ট এমন এলাকা, যেখানে পানি থাকার সম্ভাবনা থাকে; এমন এলাকাকে বাসযোগ্য এলাকা বলা হয়েছে।


গবেষকদের বিশ্বাস, টিআরএপিপিআইএসটি-১ এফ প্রাণধারণের জন‌্য সবচেয়ে উপযুক্ত। এটি পৃথিবীর চেয়ে কিছুটা শীতল। সঠিক বায়ুমণ্ডল ও পর্যাপ্ত গ্রিন হাউজ গ‌্যাসসহ এটা প্রাণের জন‌্য উপযুক্ত হতে পারে।

Post A Comment: