ফিটনেস ধরে রাখতে অনেকে নিয়মিত শরীরচর্চা করতে চান। বিশেষ করে নারীরা একটু মুটিয়ে গেলেই শরীরচর্চার জন্য উঠেপড়ে লেগে যান। অনেকের হয়তো শরীরচর্চার সঠিক নিয়ম বা কৌশলও জানেন না। শরীরচর্চা সম্পর্কে অনেকের আবার ভুল ধারণাও থাকে। ফলে তারা শরীরচর্চার সময় অনেক ভুল করে থাকেন। ১. কয়েক সপ্তাহ শরীরচর্চা করার পর কোনো ভাবে হতাশ হবেন না। প্রত্যেক নারীরই শারীরিক গঠন আলাদা। একজনের ক্ষেত্রে যেটা উপকার হবে অন্যজনের ক্ষেত্রে তা নাও হতে পারে। ধৈর্য ধরুন। বিষয়টি সম্পর্কে যদি সঠিক ধারণা না থাকে তবে আপনার শরীরচর্চার শিক্ষককে জিজ্ঞাসা করতে পারেন, অথবা ফিটনেস সম্পর্কে ভালো জানে এমন কোনো বন্ধুর পরামর্শ নিতে পারেন। এ ছাড়া এ বিষয়ে ইন্টারনেটে প্রচুর তথ্য পাবেন। সেখান থেকেও সাহায্য নিতে পারেন। ২. কোনো উপকার দেখতে না পেলে সেখানেই বিরতি দিন। আলাদা কোনো শরীরচর্চার পদ্ধতি বা রুটিন বের করুন। শরীরচর্চার কোন পদ্ধতিটা আপনার কাজে লাগবে সেটা না ভেবে কোন পদ্ধতিটা আপনার পছন্দ সেটাই চিন্তা করুন। ৩. যদি আপনি নতুন করে বা দীর্ঘ বিরতির পর শরীরচর্চা শুরু করে থাকেন। তাড়াহুড়ো করার কিছু নেই। ধীরে ধীরে শুরু করুন। নিজেই ভালো একটা রুটিন তৈরি করে নিন। শুরুর দিকে কিছুদিন শরীরে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। ধীরে ধীরে নতুন নিয়মে অভ্যস্ত হয়ে পড়বেন। ৪. শরীরচর্চার পর আপনার কোনটা গুরুত্বপূর্ণ সেটা ভাবুন। কফির পরিবর্তে আপনি পানি পান করুন। শরীরচর্চার পর মনে হতে পারে প্রচুর ক্যালরি ক্ষয় হয়েছে। এই ভেবে আপনি উচ্চ ক্যালরিযুক্ত খাবার খেতে যাবেন না। বড়জোড় একটা স্যান্ডউইচ অথবা এককাপ দই খেতে পারেন। ৫. আপনি কি নিয়মিত ট্রেডমিলে দৌড়ান? যদি নিয়মিত ট্রেডমিলে দৌড়ানোর পর বিরতি দিলে ভুল করবেন। এটা আপনার শরীরের ক্যালরি কমাতে কোনো উপকারে আসবে না। আর এটা মনে করবেন না যে শরীরের পেশি বেড়ে যাচ্ছে। আপনার ফিটনেস ট্রেনারের পরামর্শ নিন ফিটনেস ধরে রাখার জন্য কোনটা আপনার জন্য উপযুক্ত। ৬. শরীরচর্চার আগে ও পরে আপনার শরীর প্রসারিত করতে ভুলবেন না। শরীরচর্চার সময় যেন কোনো আঘাত না পান সেদিকে খেয়াল রাখুন। ৭. অবাস্তব কোনো প্রত্যাশা করবেন না। সময় নিয়ে অনুশীলন করুন। ঠিকই লক্ষ্যে পৌঁছাবেন। সূত্র: ইন্টারনেট



  ফিটনেস ধরে রাখতে অনেকে নিয়মিত শরীরচর্চা করতে চান। বিশেষ করে নারীরা একটু মুটিয়ে গেলেই শরীরচর্চার জন্য উঠেপড়ে লেগে যান। অনেকের হয়তো শরীরচর্চার সঠিক নিয়ম বা কৌশলও জানেন না। শরীরচর্চা সম্পর্কে অনেকের আবার ভুল ধারণাও থাকে। ফলে তারা শরীরচর্চার সময় অনেক ভুল করে থাকেন।

১. কয়েক সপ্তাহ শরীরচর্চা করার পর কোনো ভাবে হতাশ হবেন না। প্রত্যেক নারীরই শারীরিক গঠন আলাদা। একজনের ক্ষেত্রে যেটা উপকার হবে অন্যজনের ক্ষেত্রে তা নাও হতে পারে। ধৈর্য ধরুন। বিষয়টি সম্পর্কে যদি সঠিক ধারণা না থাকে তবে আপনার শরীরচর্চার শিক্ষককে জিজ্ঞাসা করতে পারেন, অথবা ফিটনেস সম্পর্কে ভালো জানে এমন কোনো বন্ধুর পরামর্শ নিতে পারেন। এ ছাড়া এ বিষয়ে ইন্টারনেটে প্রচুর তথ্য পাবেন। সেখান থেকেও সাহায্য নিতে পারেন।

২. কোনো উপকার দেখতে না পেলে সেখানেই বিরতি দিন। আলাদা কোনো শরীরচর্চার পদ্ধতি বা রুটিন বের করুন। শরীরচর্চার কোন পদ্ধতিটা আপনার কাজে লাগবে সেটা না ভেবে কোন পদ্ধতিটা আপনার পছন্দ সেটাই চিন্তা করুন।

৩. যদি আপনি নতুন করে বা দীর্ঘ বিরতির পর শরীরচর্চা শুরু করে থাকেন। তাড়াহুড়ো করার কিছু নেই। ধীরে ধীরে শুরু করুন। নিজেই ভালো একটা রুটিন তৈরি করে নিন। শুরুর দিকে কিছুদিন শরীরে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। ধীরে ধীরে নতুন নিয়মে অভ্যস্ত হয়ে পড়বেন।

৪. শরীরচর্চার পর আপনার কোনটা গুরুত্বপূর্ণ সেটা ভাবুন। কফির পরিবর্তে আপনি পানি পান করুন। শরীরচর্চার পর মনে হতে পারে প্রচুর ক্যালরি ক্ষয় হয়েছে। এই ভেবে আপনি উচ্চ ক্যালরিযুক্ত খাবার খেতে যাবেন না। বড়জোড় একটা স্যান্ডউইচ অথবা এককাপ দই খেতে পারেন।

৫. আপনি কি নিয়মিত ট্রেডমিলে দৌড়ান? যদি নিয়মিত ট্রেডমিলে দৌড়ানোর পর বিরতি দিলে ভুল করবেন। এটা আপনার শরীরের ক্যালরি কমাতে কোনো উপকারে আসবে না। আর এটা মনে করবেন না যে শরীরের পেশি বেড়ে যাচ্ছে। আপনার ফিটনেস ট্রেনারের পরামর্শ নিন ফিটনেস ধরে রাখার জন্য কোনটা আপনার জন্য উপযুক্ত। 

৬. শরীরচর্চার আগে ও পরে আপনার শরীর প্রসারিত করতে ভুলবেন না। শরীরচর্চার সময় যেন কোনো আঘাত না পান সেদিকে খেয়াল রাখুন।

৭. অবাস্তব কোনো প্রত্যাশা করবেন না। সময় নিয়ে অনুশীলন করুন। ঠিকই লক্ষ্যে পৌঁছাবেন।

সূত্র: ইন্টারনেট

Post A Comment: