স্বপ্নের মত একটা দিন গেছে। সাকিব আল হাসান করেছেন ডাবল সেঞ্চুরি, মুশফিকুর রহীম খেলেছেন দেড়শ পেরোনো ইনিংস। দিনের খেলা শেষে টিভি সাক্ষাৎকারে জন্য আতহার আলীর সামনে তাই দুজন সুখী মানুষের দেখাই মিলল। তাতে সাকিবের কণ্ঠে ঝরল দলকে ভালো জায়গায় নিয়ে যেতে পারার তৃপ্তি। আর অধনিায়ক মুশফিক জানালেন, বাকি তিন দিন সাফল্য যাত্রাটা ধরে রেখে আরো ভালো কিছু করার প্রত্যয়।

 Shakib-and-Mushfiqur-Rahim-could-give-us-some-satisfaction-country

স্বপ্নের মত একটা দিন গেছে। সাকিব আল হাসান করেছেন ডাবল সেঞ্চুরি, মুশফিকুর রহীম খেলেছেন দেড়শ পেরোনো ইনিংস। দিনের খেলা শেষে টিভি সাক্ষাৎকারে জন্য আতহার আলীর সামনে তাই দুজন সুখী মানুষের দেখাই মিলল। তাতে সাকিবের কণ্ঠে ঝরল দলকে ভালো জায়গায় নিয়ে যেতে পারার তৃপ্তি। আর অধনিায়ক মুশফিক জানালেন, বাকি তিন দিন সাফল্য যাত্রাটা ধরে রেখে আরো ভালো কিছু করার প্রত্যয়।


ওয়েলিংটনের বেসিন রিজার্ভে শুক্রবার প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৭ উইকেট হারিয়ে ৫৪২ রানের বিশাল সংগ্রহ গড়ে দ্বিতীয় দিন শেষ করেছে বাংলাদেশ। নিউজিল্যান্ডের বোলারদের কাঁদিয়ে সাকিব-মুশফিক এদিন যেকোনো উইকেটে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ৩৫৯ রানের রেকর্ড জুটি গড়েছেন। সাকিব দেশের হয়ে ব্যক্তিগত সেরা টেস্ট ইনিংস খেলে ২১৭ রানে থেমেছেন। তার রেকর্ড জুটিতে তার সঙ্গী মুশফিকের ব্যাট থেকে এসেছে ১৫৯ রানের ঝলমলে ইনিংস। এটা মুশির ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের ইনিংস।

আপাতত স্বস্তিতে দল। সাদা পোশকে ক্রমাগত উন্নতির ছাপ রেখে চলা অব্যাহত রয়েছে। কয়েকদিন আগে ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টির ক্ষতে প্রলেপ দেওয়ারও তাড়না আছে। সঙ্গে আছে ব্যক্তিগত মাইলফলক ছোঁয়ার আনন্দ। সাকিবের কাছে অবশ্য দেশের জন্য অবদান রাখা আর দলকে সাহায্য করাটাই বড়।
দিনশেষে টাইগারদের সেরা অলরাউন্ডার সাকিব বললেন, ‘ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টি সিরিজে আমরা ভালো করতে পারিনি। টেস্টে ভালো কিছু করা তাই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। আমার নিজের জন্য তো অবশ্যই, দেশের জন্যও গুরুত্বপূর্ণ। দলকে ভালো জায়গায় নিতে আমার এই ইনিংসটা সাহায্য করেছে। সেটা তো তৃপ্তিরই। এমন একটা ইনিংস খেলতে পেরে ভালো লাগছে।’

এদিন ৮২.২ ওভার অবিচ্ছিন্ন ছিলেন সাকিব-মুশফিক। রানও তুলেছেন দ্রুততার সঙ্গে। তবে খুব একটা পরিকল্পনা করে নয়, দুজনে কেবল স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে চেয়েছেন বলেই জানালেন, ‘ওয়েলিংটনের উইকেট ব্যাটিং করার উপযোগী ছিল। ওদের কয়েকজন দুর্দান্ত বোলার আছে। কিছু বল খেলা কঠিনও ছিল। আউট হতে তো একটা মাত্রই বলই যথেষ্ট। তবুও আমরা কেবল আমাদের মতো করেই খেলতে চেয়েছি। বলের ধরণ বুঝে খেলার একটা পরিকল্পনা ছিল। মাথা ঠাণ্ডা রেখে খেললে রান আসবে বোঝা যাচ্ছিল। আমরা শুধু সেটাই করেছি।’

সেই করতে পারাতে সমান অবদান মুশফিকেরও। টেস্ট অধিনায়কের কথাতেও সেই তৃপ্তিটা ধরা পড়ল। তবে এখনো তিন দিন বাকি। ঘটার আছে অনেক কিছুও। মুশফিক সাবধান। তবে আপাতত তো দল একটা শক্ত অবস্থানে পৌঁছেছে। সেটা নিয়ে মুশফিক বললেন, ‘খেলা এখনো তিন দিন বাকি আছে। সঙ্গে তিনটি ইনিংস বাকি। দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে হবে আমাদের। এখন পর্যন্ত যেটা হয়েছে তাতে তৃপ্তি আছে। বোলিংয়েও সেটা ধরে রাখতে হবে। এই উইকেটে নিয়ন্ত্রিত বোলিং করতে পারলে নিউজিল্যান্ডকে অনেক কঠিন পরিস্থিতিতে ঠেলে দেওয়া সম্ভব।’

Post A Comment: