আগামী বছরে যে অ্যান্ড্রয়েডচালিত স্মার্টফোনগুলো বাজারে আসবে তার মধ্যে অধিকাংশ স্মার্টফোনে থাকবে কোয়ালকমের তৈরি ‘স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫’ নামের একটি চিপ। সম্প্রতি ফ্ল্যাগশিপ চিপ হিসেবে নতুন এই চিপটি উন্মুক্ত করেছে মার্কিন প্রযুক্তি-প্রতিষ্ঠানটি।

আগামী বছরে যে অ্যান্ড্রয়েডচালিত স্মার্টফোনগুলো বাজারে আসবে তার মধ্যে অধিকাংশ স্মার্টফোনে থাকবে কোয়ালকমের তৈরি ‘স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫’ নামের একটি চিপ। সম্প্রতি ফ্ল্যাগশিপ চিপ হিসেবে নতুন এই চিপটি উন্মুক্ত করেছে মার্কিন প্রযুক্তি-প্রতিষ্ঠানটি।


কোয়ালকম কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তাদের তৈরি ১০ ন্যানোমিটার প্রসেসর ব্যবহার করে স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ চিপ তৈরি করবে স্যামসাং। ১০ ন্যানোমিটার (১০ এনএম) সমান পানির এক অণু বা এক তন্তু চুলের এক হাজার ভাগের এক ভাগ।


স্যামসাংয়ের সঙ্গে যৌথভাবে কাজের ঘোষণা দিয়ে কোয়ালকমের পণ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের জ্যেষ্ঠ ভাইস প্রেসিডেন্ট কেইথ ক্রেসিন বলেন, মোবাইল শিল্পকে নেতৃত্ব দেবে এমন পণ্য তৈরিতে স্যামসাংয়ের সঙ্গে কাজ করতে পেরে আমরা রোমাঞ্চিত। ১০ ন্যানোমিটার প্রযুক্তির স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ প্রসেসর অধিক শক্তিসাশ্রয়ী, উন্নত কার্যক্ষমতা দেখাতে সক্ষম হবে।


১৪ ন্যানোমিটার আকারের প্রসেসরের তুলনায় ১০ ন্যানোমিটার প্রসেসরে জায়গা কম লাগবে বলে স্মার্টফোন নির্মাতারা ফোন আরও বেশি হালকা-পাতলা করতে পারবেন। ফোনে ব্যাটারির জন্য জায়গা বাড়বে।

নতুন এই প্রসেসর কোয়ালকমের কুইক চার্জ ৪.০ প্রযুক্তি সমর্থন করবে। এতে মোবাইল ফোনে দ্রুত চার্জ দেওয়া সম্ভব হবে। অর্থাৎ ১৫ মিনিট চার্জ দিলেই ৫০ শতাংশের বেশি চার্জ হবে।


২০১৭ সালের প্রথমার্ধেই এই প্রসেসর চালিত ফোন বাজারে দেখা যাবে। কোয়ালকমের প্রসেসর দিয়ে অ্যান্ড্রয়েডনির্ভর ফোন তৈরি করে এলজি, স্যামসাং, লেনোভো, এইচটিসি। তবে অ্যাপল তাদের আইফোনের জন্য নিজস্ব প্রসেসরের নকশা করে। অ্যাপলের আইফোন ৭ ও ৭ প্লাসে কোয়ালকমের মডেম ব্যবহার করা হয়েছে।

Post A Comment: