বাকি পুরো একটি দিন। জিততে হলে শ্রীলঙ্কার দরকার মাত্র ৩টি উইকেট। আর জিম্বাবুয়ের? থাক, হারারে টেস্টে জিম্বাবুইয়ানদের জয়ের হিসাব এখন আর না করাই ভালো। ক্রিকেট চূড়ান্ত অনিশ্চয়তার খেলা মেনেও বলা যায়, হাতে ২ উইকেট নিয়ে আরও ৩১১ রান করে ম্যাচ জয়ের সম্ভাবনা জিম্বাবুয়ের নেই।


বাকি পুরো একটি দিন। জিততে হলে শ্রীলঙ্কার দরকার মাত্র ৩টি উইকেট। আর জিম্বাবুয়ের? থাক, হারারে টেস্টে জিম্বাবুইয়ানদের জয়ের হিসাব এখন আর না করাই ভালো। ক্রিকেট চূড়ান্ত অনিশ্চয়তার খেলা মেনেও বলা যায়, হাতে ২ উইকেট নিয়ে আরও ৩১১ রান করে ম্যাচ জয়ের সম্ভাবনা জিম্বাবুয়ের নেই।

হারারেতে সিরিজে দ্বিতীয় টেস্টে তাই বড় জয়ই দেখছে শ্রীলঙ্কা। হেরাথদের সামনে এখন বাধা বলতে শুধু ক্রেগ আরভিন। প্রথম ইনিংসে হাফ সেঞ্চুরি করেছিলেন, কাল চতুর্থ দিন শেষেও বাঁহাতি ব্যাটসম্যান অপরাজিত ছিলেন ৬৫ রানে। তাতে ৪৯১ রান তাড়া করার লক্ষ্য নিয়ে নামা জিম্বাবুয়ে দিন শেষ করেছে ৭ উইকেটে ১৮০ রান নিয়ে।


লক্ষ্যটাই ‘হিমালয়’ ডিঙানোর মতো, তাতে জিম্বাবুয়েকে শুরুতেই অক্সিজেন-ছাড়া করে দিয়েছেন রঙ্গনা হেরাথ। এই টেস্টের আগে টেস্টে শুধু জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই ইনিংসে কখনো ৫ উইকেট পাননি। এবার এক টেস্টেই সেটি করলেন দুবার! তাঁর বাঁ হাতের ঘূর্ণি সামলে আরভিন ছাড়া জিম্বাবুইয়ান ব্যাটসম্যানদের মধ্যে লড়েছেন শুধু শন উইলিয়ামসই (৪৫ রান)।


এর আগে তৃতীয় দিনেই ফিফটি পাওয়া দিমুথ করুনারত্নে কাল আউট হন সেঞ্চুরি থেকে ১২ রান দূরে থেকে। সঙ্গে কুশল পেরেরার ফিফটিতে লক্ষ্যটাকে ‘হিমালয়’ বানিয়েই ইনিংস ঘোষণা করেন হেরাথ। জিম্বাবুয়ের জয়ের সম্ভাবনা তো তখনই প্রায় শেষ, সেটিকে শূন্যের কোঠায় নামিয়ে এনেছেন লঙ্কান অধিনায়ক নিজেই। ক্রিকইনফো।


সংক্ষিপ্ত স্কোর
শ্রীলঙ্কা ১ম ইনিংস:

 ৫০৪ ও দ্বিতীয় ইনিংস: ২৫৮/৯ ডি. (করুনারত্নে ৮৮, কুশল পেরেরা ৬২, গুনারত্নে ৩৯; ক্রেমার ৪/৯১, মুম্বা ৩/৬৭)।


জিম্বাবুয়ে ১ম ইনিংস: 

২৭২ ও ২য় ইনিংস: ৪৫ ওভারে ১৮০/৭ (আরভিন ৬৫*, উইলিয়ামস ৪৫; হেরাথ ৫/৪৫)।

Post A Comment: