চীনের হুনান শহরের এক রাস্তায় সম্প্রতি গাড়িচাপায় দুই বছরের এক শিশুর মৃত্যু ঘটে। দুর্ঘটনার সময় ঠিক পেছনেই ছিলেন শিশুটির মা, তবে মুঠোফোনে ব্যস্ত থাকায় শিশুর দিকে তাঁর খেয়াল ছিল না। সিসিটিভি ক্যামেরায় ধারণ করা সে হৃদয়বিদারক ভিডিও ছড়িয়ে পড়লে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে স্মার্টফোনে আসক্তি নিয়ে নতুন করে সোচ্চার হয়েছেন চীনের নাগরিকেরা।



চীনের হুনান শহরের এক রাস্তায় সম্প্রতি গাড়িচাপায় দুই বছরের এক শিশুর মৃত্যু ঘটে। দুর্ঘটনার সময় ঠিক পেছনেই ছিলেন শিশুটির মা, তবে মুঠোফোনে ব্যস্ত থাকায় শিশুর দিকে তাঁর খেয়াল ছিল না। সিসিটিভি ক্যামেরায় ধারণ করা সে হৃদয়বিদারক ভিডিও ছড়িয়ে পড়লে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে স্মার্টফোনে আসক্তি নিয়ে নতুন করে সোচ্চার হয়েছেন চীনের নাগরিকেরা।


সিসিটিভি ক্যামেরার ভিডিওতে দেখা যায়, রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে আছে গাড়ি, পাশ দিয়ে হেঁটে এক শিশু এগিয়ে আসছে। ঠিক পেছনে আছেন মা। তবে তিনি মুঠোফোনে এমনই বুঁদ হয়ে ছিলেন যে শিশুর প্রতি কোনো খেয়াল ছিল না। শিশুটি গাড়ির সামনের দিকে এগিয়ে গেলে হঠাৎ চলতে শুরু করে গাড়ি। সে গাড়ির তুলনায় শিশু ছোট হওয়ায় চালকের চোখে পড়েনি। ফলে দুর্ঘটনা ঘটে। দৃশ্যটি সবাইকে হতবাক করে।


টুটু নামের মেয়েটির মৃত্যুর ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার পর স্থানীয় প্রশাসন রাস্তায় পারতপক্ষে মুঠোফোন ব্যবহার না করার আহ্বান জানিয়েছে। শুধু চীনেই এ বছর একই কারণে বেশ কয়েকবার শিশুমৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। স্মার্টফোন আসক্তি বিশেষজ্ঞ লিও কুইনজুই বলেন, ‘যথেষ্ট আলোচনা ও সচেতনতার অভাবে মানুষ কখনো ভাবে না যে ফোনের অতিমাত্রার ব্যবহার কতটা বিপদ ডেকে আনতে পারে।’


চীনে গাড়ি চালানো অবস্থায় ফোন ব্যবহারের ঝুঁকি এড়াতে আইন করা হয়েছে। ২০১৪ সালের জানুয়ারি থেকে অক্টোবর মাসে ৬৯০টি বড় দুর্ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে ৩৯টি ছিল গাড়ি চালানোর সময় অসতর্ক অবস্থায় মুঠোফোন ব্যবহার করার জন্য। গাড়ি চালানোর সময় কেউ ফোন ব্যবহার করছে কি না সেদিকে লক্ষ রাখতে রাস্তায় অত্যাধুনিক ট্রাফিক ক্যামেরা লাগিয়েছে চীনা পুলিশ।


ফোনের আসক্তি কমাতে কয়েকটি অভ্যাস পরিবর্তনের পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। এর মধ্যে সহকর্মী ও পরিবারের সঙ্গে বেশি সময় কাটানো, খাবারে টেবিলে ফোন ব্যবহার না করা, গাড়িতে ফোন ব্যবহার না করা এবং শ্রেণিকক্ষে কিংবা মিটিং রুমেও ফোন ব্যবহার না করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

Post A Comment: