দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করছে ইংল্যান্ড। বাংলাদেশ তখন একটু একটু করে এগিয়ে চলেছে জয়ের বন্দরে। ইংলিশ অলরাউন্ডার বেন স্টোকসকে বোল্ড করেও বুনো উল্লাসে মেতে উঠলেন না সাকিব আল হাসান! শুধু উইকেটের সামনে দাঁড়িয়ে কপালে হাত ঠেকিয়ে একটু খানি ‘স্যালুট’। ব্যস, এতেই যেন হয়ে গেল অনেক না–বলা কথার জবাব। তা হঠাৎ করে কেন এভাবে অদ্ভুত উদ্‌যাপন করতে গেলেন বাংলাদেশের অলরাউন্ডার? ঠোকাঠুকির গল্পের শুরুটা আসলে ইংল্যান্ডের সঙ্গে প্রস্তুতি ম্যাচের দিন থেকেই। ফতুল্লায় বিসিবি একাদশের হয়ে সেদিন সেঞ্চুরি করেছিলেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যান আবদুল মজিদ। ম্যাচ শেষে স্টোকসের দিকে হাত বাড়িয়ে দিলেও দৃষ্টিকটুভাবে সৌজন্য করমর্দনটা এড়িয়ে গিয়েছিলেন ইংলিশ ক্রিকেটার। এরপর ওয়ানডে, টেস্টেও টুকটাক স্লেজিং হয়েছে দুই দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে। আজও যেমন সাব্বিরের সঙ্গে স্টোকসের বাদানুবাদ থামাতে এগিয়ে আসতে হয়েছিল আম্পায়ারদের। আইসিসির আচরণবিধি ভাঙায় ম্যাচ ফির পনেরো শতাংশ জরিমানাও করা হয়েছে তাঁকে। স্টোকসের নামের পাশে যোগ হয়েছে একটি ডিমেরিট পয়েন্ট।




দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করছে ইংল্যান্ড। বাংলাদেশ তখন একটু একটু করে এগিয়ে চলেছে জয়ের বন্দরে। ইংলিশ অলরাউন্ডার বেন স্টোকসকে বোল্ড করেও বুনো উল্লাসে মেতে উঠলেন না সাকিব আল হাসান! শুধু উইকেটের সামনে দাঁড়িয়ে কপালে হাত ঠেকিয়ে একটু খানি ‘স্যালুট’। ব্যস, এতেই যেন হয়ে গেল অনেক না–বলা কথার জবাব। তা হঠাৎ করে কেন এভাবে অদ্ভুত উদ্‌যাপন করতে গেলেন বাংলাদেশের অলরাউন্ডার? ঠোকাঠুকির গল্পের শুরুটা আসলে ইংল্যান্ডের সঙ্গে প্রস্তুতি ম্যাচের দিন থেকেই। ফতুল্লায় বিসিবি একাদশের হয়ে সেদিন সেঞ্চুরি করেছিলেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যান আবদুল মজিদ। ম্যাচ শেষে স্টোকসের দিকে হাত বাড়িয়ে দিলেও দৃষ্টিকটুভাবে সৌজন্য করমর্দনটা এড়িয়ে গিয়েছিলেন ইংলিশ ক্রিকেটার। এরপর ওয়ানডে, টেস্টেও টুকটাক স্লেজিং হয়েছে দুই দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে। আজও যেমন সাব্বিরের সঙ্গে স্টোকসের বাদানুবাদ থামাতে এগিয়ে আসতে হয়েছিল আম্পায়ারদের। আইসিসির আচরণবিধি ভাঙায় ম্যাচ ফির পনেরো শতাংশ জরিমানাও করা হয়েছে তাঁকে। স্টোকসের নামের পাশে যোগ হয়েছে একটি ডিমেরিট পয়েন্ট।


সাব্বিরের সঙ্গে অহেতুক ঝগড়া, মজিদের সঙ্গে হাত মেলানোয় অনাগ্রহ—সাকিব নিশ্চয় এই ব্যাপারগুলো মনের মধ্যে পুষেই রেখেছিলেন। আর এসবের মোক্ষম জবাবের সুযোগে ছিলেন। সেই মাহেন্দ্রক্ষণটা পেয়ে গেলেন স্টোকসকে বোল্ড আউট করার পর। স্টোকসের জন্য এমন স্যালুট পাওয়ার অভিজ্ঞতা এই প্রথম নয়। এর আগেও এমন সামরিক ভঙ্গিমায় ‘অভিবাদন’ পেয়েছিলেন তিনি। গত বছর এপ্রিলে গ্রানাডায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে দ্বিতীয় টেস্টে স্টোকসকে আউট করে স্যালুট জানিয়েছিলেন মারলন স্যামুয়েলস। ঠিকই একই দৃশ্য এবার দেখ গেল মিরপুরে। তবে স্টোকসও কিন্তু কম যাননি! ম্যাচ শেষে নিজের টুইট অ্যাকাউন্টে লিখেছেন, ‘দারুণ একটা টেস্ট সিরিজ ও ওয়ানডে সিরিজে আমাদের আতিথেয়তা দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ বাংলাদেশকে। নিরাপত্তা দলকে স্যালুট, বাংলাদেশের জনগণকে এবং অবশ্যই সাকিব আল হাসানকে।’


স্যালুটের জবাবটা নিশ্চয় উপভোগই করেছেন সাকিব!

Post A Comment: