দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক কুতুবডাঙ্গা শাখার ক্যাশ ইনচার্জ মোস্তফা কামালের আচরণ, অভ্যাস ও ব্যবহারে সাধারণ গ্রাহকগণ অতিষ্ঠ ও ক্ষুুদ্ধ হয়ে ওঠেছে। গত ৭ আগষ্ঠ সরজমিনে জানা যায়, উপজেলার অমরপুর ইউনিয়নের কুতুবডাঙ্গা বাজারে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক কুতুবডাঙ্গা শাখার ক্যাশ ইনচার্জ মোস্তফা কামাল বিকেল সোয়া ৪ টায় চাকুরীরত অবস্থায় খালি গায়ে বসে ক্যাশে কাজ করছেন। এসময় ওই ক্যাশিয়ার গর্ব করে জানান, তিনি সিবিএ এর বড় নেতা। অনেক বড় বড় সাংবাদিক তার বন্ধু। সাংবাদিকদের আমি কোটি কোটি টাকা বিল দিয়েছি। তাছাড়া ক্যাশ বন্ধের পর খালি গায়ে থাকা কোন ব্যাপার নয়। ২য় কর্মকর্তা মমিনুর রশিদ জানান, অফিস চলাকালীন সময়ে খালি গায়ে কাজ করা ঠিক নয়। উনি ভুল করেছেন।



দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক কুতুবডাঙ্গা শাখার ক্যাশ ইনচার্জ মোস্তফা কামালের আচরণ, অভ্যাস ও ব্যবহারে সাধারণ গ্রাহকগণ অতিষ্ঠ ও ক্ষুুদ্ধ হয়ে ওঠেছে। গত ৭ আগষ্ঠ সরজমিনে জানা যায়, উপজেলার অমরপুর ইউনিয়নের কুতুবডাঙ্গা বাজারে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক কুতুবডাঙ্গা শাখার ক্যাশ ইনচার্জ মোস্তফা কামাল বিকেল সোয়া ৪ টায় চাকুরীরত অবস্থায় খালি গায়ে বসে ক্যাশে কাজ করছেন। এসময় ওই ক্যাশিয়ার গর্ব করে জানান, তিনি সিবিএ এর বড় নেতা। অনেক বড় বড় সাংবাদিক তার বন্ধু। সাংবাদিকদের আমি কোটি কোটি টাকা বিল দিয়েছি। তাছাড়া ক্যাশ বন্ধের পর খালি গায়ে থাকা কোন ব্যাপার নয়। ২য় কর্মকর্তা মমিনুর রশিদ জানান, অফিস চলাকালীন সময়ে খালি গায়ে কাজ করা ঠিক নয়। উনি ভুল করেছেন।


শাখা ব্যবস্থাপক মোবারক আলী জানান, অফিস চলাকালীন সময়ে  খালি গায়ে থাকা নীতিমালা পরিপন্থি। এটা অন্যায় এবং আমি তাকে শোকজ করব।


নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন গ্রাহক জানান, ওই ক্যাশিয়ার প্রায় সকলের সঙ্গেই দুর্ব্যবহার করে থাকেন। বিশেষ করে বিদ্যুত বিল গ্রহনে চরম হয়রানী করে থাকেন। প্রায় দিনেই খালি গায়ে অফিস করেন কাউকে তোয়াক্কা করেননা। এ ঘটনায় সাধারণ গ্রাহকগণ ও এলাকাবাসী দ্রুত ওই ক্যাশিয়ারের বিরুদ্ধে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার দাবী জানিয়েছেন।

Post A Comment: