নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা অ্যান্ড্রয়েড ফোনে ব্যবহৃত কোয়ালকম চিপের চারটি সিরিজে জটিল বাগ বা সফটওয়্যার ত্রুটি খুঁজে পেয়েছেন, যা কাজে লাগিয়ে স্মার্টফোনের পুরো নিয়ন্ত্রণ নিতে পারে সাইবার দুর্বৃত্তরা। এই সফটওয়্যার ত্রুটি দূর করতে এখনো অধিকাংশ ফোনের জন্য নিরাপত্তা প্যাঁচ উন্মুক্ত করা হয়নি। তবে গুগল তাদের নেক্সাস ফোনের জন্য কয়েকটি নিরাপত্তা প্যাঁচের হালনাগাদ করেছে।



নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা অ্যান্ড্রয়েড ফোনে ব্যবহৃত কোয়ালকম চিপের চারটি সিরিজে জটিল বাগ বা সফটওয়্যার ত্রুটি খুঁজে পেয়েছেন, যা কাজে লাগিয়ে স্মার্টফোনের পুরো নিয়ন্ত্রণ নিতে পারে সাইবার দুর্বৃত্তরা। এই সফটওয়্যার ত্রুটি দূর করতে এখনো অধিকাংশ ফোনের জন্য নিরাপত্তা প্যাঁচ উন্মুক্ত করা হয়নি। তবে গুগল তাদের নেক্সাস ফোনের জন্য কয়েকটি নিরাপত্তা প্যাঁচের হালনাগাদ করেছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাজারের জনপ্রিয় কয়েকটি স্মার্টফোন, যেমন: গ্যালাক্সি এস ৭, এস ৬, এইচটিসি ওয়ান এম ৯, এইচটিসি ১০, নেক্সাস ৫ এক্স, নেক্সাস ৬পি ও নেক্সাস ৬ হ্যাকিং ঝুঁকিতে আছে। এমনকি সবচেয়ে নিরাপদ স্মার্টফোন হিসেবে ব্ল্যাকবেরির দাবি করা ডিটিইকে ৫০ ফোনটিও ঝুঁকিতে। সব মিলিয়ে ৯০ কোটি অ্যান্ড্রয়েডচালিত স্মার্টফোন হ্যাকিং ঝুঁকিতে আছে।


সাইবার নিরাপত্তাপণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান চেক পয়েন্টের গবেষকেরা ‘কোয়াডরুটার’ নামের বাগটি খুঁজে পান, যা কোয়ালকম চিপের ওপর প্রভাব ফেলে। এটি ক্যামেরা ও মাইক্রোফোনের নিয়ন্ত্রণ সাইবার দুর্বৃত্তের হাতে তুলে দিতে পারে।


দ্রুত এই সফটওয়্যার ত্রুটি দূর করতে প্যাঁচ উন্মুক্ত করেছে কোয়ালকম। কিন্তু অ্যান্ড্রয়েড ইকোসিস্টেমের ভিন্নতার কারণে এখনো অধিকাংশ অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীর কাছে প্যাঁচ যায়নি।
নেক্সাস ডিভাইসের জন্য গুগল তিনটি প্যাঁচ ছাড়লেও এখনো ত্রুটি থেকে গেছে। অ্যান্ড্রয়েড ফোন নির্মাতারা এসব প্যাঁচ পেলেও তারা অনেক দেরিতে হালনাগাদ করে।


চেক পয়েন্টের মোবিলিটি প্রোডাক্ট ব্যবস্থাপনার প্রধান মাইকেল শাওলভ বলেন, এই মুহূর্তে যাদের কাছে ডিভাইস আছে, কেউ পূর্ণ নিরাপদ নয়।
গবেষকেদের পরামর্শ হচ্ছে, অপরিচিত কোনো উৎস থেকে কোনো অ্যাপ ডাউনলোড করবেন না।

Post A Comment: