ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ শুক্রবার দুপুরে হাসিনা (১২) নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। সে রাজধানীর মোহাম্মদপুরে একটি বাড়িতে গৃহকর্মী ছিল। হাসিনার পরিবারের অভিযোগ, গৃহকর্তা ও গৃহকর্ত্রীর নির্যাতনে তাদের মেয়ে মারা গেছে।


হাসিনার মা সালমা বেগম প্রথম আলোকে বলেন, তিনি মোহাম্মদপুর কাঠপট্টি এলাকার পাঁচতলা একটি বাড়ির পাঁচতলায় শরীফুল নামের এক ব্যক্তির ফ্ল্যাটে মেয়েকে নিয়ে কাজ করতেন। সালমা দুই মাস আগে অসুস্থ হলে হাসিনাকে রেখে ময়মনসিংহের ধোবাউড়ার কামারপুরে গ্রামের বাড়িতে চলে যান। ১৯ মে দিবাগত রাত তিনটার দিকে হাসিনাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেখে পালিয়ে যান গৃহকর্তা শরীফুল। এ সময় হাসিনার মুখমণ্ডলসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন ছিল।

খবর পেয়ে হাসিনার মা সালমা ঢাকায় ফিরে ২৫ মে মোহাম্মদপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে গৃহকর্ত্রী লিজা ও তাঁর স্বামী শরীফুলকে আসামি করে মামলা করেন।

এ ব্যাপারে পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপকমিশনার বিপ্লব কুমার সরকার প্রথম আলোকে বলেন, মামলার আসামিরা পলাতক। তাঁদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। হাসিনা মারা যাওয়ায় নারী নির্যাতনের মামলাটি হত্যা মামলা হিসেবে পরিচালিত হবে।

Post A Comment: