মেষ ২১ মার্চ-২০ এপ্রিল। ভর # ৬
জ্যোতিষশাস্ত্র বিজ্ঞান নয়। এটি বহু যুগ ধরে গড়ে ওঠা একটি অনুমান সূত্রের সংকলন মাত্র। যাকে বলে ‘হাইপোথিসিস’। হ্যাঁ, এ কথাও সত্যি যে বৈজ্ঞানিক ভাবনার সূত্রপাত হয় এই হাইপোথিসিসকে কেন্দ্র করেই। তাহলেও পুনরায় জোর দিয়ে বলি: বিজ্ঞান ও জ্যোতিষশাস্ত্রের মধ্যে রয়েছে আকাশ এবং পাতালের ব্যবধান। প্রিয় মেষ, চলতি সপ্তাহ শুধু নয়—আগামী দিনগুলোতেও মূলত নির্ভর করুন আপনার নিজ কর্মশক্তির ওপর।
বৃষ ২১ এপ্রিল-২১ মে। ভর # ১
বৃষ রবীন্দ্রনাথের লেখা গানে ও কবিতায় রয়েছে আমাদের জীবনের অনেক প্রশ্নেরই উত্তর। মিলিয়ে দেখলে অবাক মানতে হয় বটে! যেমন ধরুন এই গানটি: ‘যদি জানতেম আমার কিসের ব্যথা, তোমায় জানাতাম...’। সারা সপ্তাহজুড়ে আপনার মনে বাজতে থাকবে এর কথা ও সুর। শুভ হোক আপানার!

মিথুন ২২ মে-২১ জুন। ভর # ৬

কাজী নজরুল ইসলাম, চে গুয়েভারাসহ আরও অনেক মহামানব ছিলেন এবং আছেন আপনার রাশি-সঙ্গী। শাস্ত্রে মিথুন চিহ্নিত রয়েছে ‘পরিবর্তনের অনুঘটক’ হিসেবে। চলতি সাত দিনে মিথুন তার নিজের মধ্যে একটা পরিবর্তন আনতে গিয়ে কিছুটা বোধ হয় ব্যর্থ হবেন। তাহলেও বলতে হয়, শুভ পরিবর্তনের সব প্রচেষ্টাই অতি পবিত্র। জয় হোক আপনার!

কর্কট ২২ জুন-২২ জুলাই। ভর # ২

সব রাশির নারী-পুরুষের মধ্যেই ভালো মাঝারি এবং মন্দকে খুঁজে পাওয়া যায়। কর্কটেরও তাই। তবে চলতি সপ্তাহে কর্কটকে আমরা পাই তার চারিত্রিক গুণাবলির তুঙ্গে। এর ফলে বিশেষত শিল্পী, শিল্পপতি, ব্যবসায়ী, খেলোয়াড় প্রমুখ কর্কট জাতিকা ও জাতক বর্তমান সপ্তাহের সাত দিনে উল্লেখযোগ্য সাফল্যই কুড়িয়ে নিতে পারবেন বলে আমার বিশ্বাস। কাজেই দুশ্চিন্তা থেকে মুক্ত হোন প্রিয় কর্কট।

সিংহ ২৩ জুলাই-২৩ আগস্ট। ভর # ১

অগ্নিচিহ্নিত রাশি। অধিপতি গ্রহ: রবি বা সূর্য। শুভ রং: হলুদ, কমলা, হালকা সবুজ, সাদা। তাই বলে সিংহ যে অন্য কোনো পছন্দের রং ব্যবহার করতে পারবেন না—তা আমি মনে করি না। কথায় আছে: নিজের রুচি অনুযায়ী খাবার খান, অপরের রুচির দিকে লক্ষ রেখে পোশাক পরুন (আপ্ রুচি খা না, পর রুচি পেহেন্‌না।)...চলতি সপ্তাহে আপনার জনপ্রিয়তা কিছুটা হলেও বাড়বে বলে মোর মনে লয়!

কন্যা ২৪ আগস্ট-২৩ সেপ্টেম্বর। ভর # ২

সেই কোন সুদূর ছেলেবেলায় শোনা গান—অহল্যা কন্যা, ঘুম-ঘুম তোর ভাঙবে না কি, ভাঙবে না।...আপনার রাশিফল লিখতে বসে হঠাৎ এই গানটা মনে পড়ে, আপনি অবশ্যই পাবেন, তবে নিজের মধ্যে যে ঘুম-ঘুম ভাব রয়েছে—সেটাকে একটু কাটিয়ে উঠতে হবে দিদি ও দাদারা।

তুলা ২৪ সেপ্টেম্বর-২৩ অক্টোবর। ভর # ২

কিছুদিন আগে তুলা রাশির এক মহিলা আমাকে জানান, রাগ উঠলে নাকি তিনি হুঁশ হারিয়ে ফেলেন এবং পুরোটা রাগ গিয়ে পড়ে তাঁর স্বামীর ওপর। আমি জবাব দিই: রাগ তো দেওয়াই হয়েছে করার জন্য। করবেন, তবে স্বামী যাতে আপনার কথার শেল খেয়ে মরে না যান—সেদিকে একটু খেয়াল রাখবেন দয়া করে। হ্যাঁ, শাস্ত্রেই আছে: রাগটা মাঝেমধ্যে তুলা রাশির শত্রু হয়ে দাঁড়ায়।...অবশ্য অনেক সহ্য করার পরই তাঁর এই ভয়ংকর রাগটা উঠতে দেখা যায়। সৎ মানুষের এমন হয়েই থাকে। প্রিয় তুলা, লক্ষ রাখবেন যেন রাগ এসে আপনার শুভ কর্মের ফসল কেড়ে না নেয়।

বৃশ্চিক ২৪ অক্টোবর-২২ নভেম্বর। ভর # ২

আপনার বড় দোষ এবং একই সঙ্গে বড় গুণ হলো এই যে আপনি একজন সুপার পারফেকশনিস্ট, অর্থাৎ সব কাজই আপনি ১০০ ভাগ ত্রুটিহীনভাবে করতে চান। কোনো খুঁত রাখতে চান না। জাপানের অমর চলচ্চিত্রকার আকিরা কুরুসাওয়া বলেছেন, ভালো থেকে আরও ভালোর কোনো শেষ নেই। কাজেই একটা পর্যায়ে গিয়ে আপনার থেমে যাওয়াই বুদ্ধিমানের কর্তব্য। কথাটা মনে রাখুন, স্বাধীন বৃশ্চিক।

ধনু ২৩ নভেম্বর-২১ ডিসেম্বর। ভর # ৯

সাধারণভাবে বলতে গেলে, ধনু নারী ও পুরুষের চরিত্র কিছুটা রহস্যময়তায় ঢাকা। তবে চলতি এই সাত দিনে ধনু তাঁর ওই রহস্যময়তার আবরণ থেকে বেশ খানিকটা বেরিয়ে আসবেন এবং তার চরিত্রের অন্তর্গত বহির্মুখিতা এখন সক্রিয় হয়ে উঠবে।...প্রিয় ধনু, আবেগের তীব্র ভাবটা নিয়ন্ত্রণে রাখুন; না হলে ঠকবেন। শুভ হোক!

মকর ২২ ডিসেম্বর-২০ জানুয়ারি। ভর # ৩

আপনি সাধারণভাবে হাসিখুশি হলেও খুব সিরিয়াস ধরনের মানুষ। কথাবার্তায় আপনি প্রবলভাবে সত্যপ্রিয়। তবে, কূটকৌশল যে আপনার মধ্যে একেবারেই নেই তা নয়। আপনি যেমন সোজা কথার ওস্তাদ, তেমনি বাঁকা কথারও চোরাগুপ্তা সৈনিক। চলতি সাত দিনে ‘যতটা সম্ভব’ বিশ্রাম নিন এবং সবাইকে আনন্দ বিতরণ করুন। অর্থাৎ আনন্দ নিন এবং অন্যকেও আনন্দ দিন।

কুম্ভ ২১ জানুয়ারি-১৮ ফেব্রুয়ারি। ভর # ৯

গানটা সবাই শোনেন এবং শুনেছেন: মুক্তির মন্দির সোপানতলে/ কত প্রাণ হলো বলিদান,/ লেখা আছে অশ্রুজলে...। আমাদের ছোটবেলা থেকে শুনে আসছি এই গান। কার লেখা, কার সুর, কার এবং কাদের গাওয়া—কিছুই জানি না। কেউ কেউ আছেন সংগীত জগতের খুঁটিনাটি খবর রাখেন। তাঁদের প্রতি অনুরোধ, আমার মাধ্যমে এই গান-সংক্রান্ত তথ্যগুলো সবাইকে জানিয়ে দিন।...ভাগ্য? ভাগ্য এ সপ্তাহে আপনার ভালোই রয়েছে।

মীন ১৯ ফেব্রুয়ারি-২০ মার্চ। ভর # ৩

সমস্যা কার না থাকে? তাই বলে সমাধানের চেষ্টা করবেন না আপনি! চেষ্টা অব্যাহত রাখুন। সপ্তাহের প্রথম ভাগেই সমস্যা সমাধানের ক্ষীণ একটা সম্ভাবনা এসে উঁকি দেবে আপনার জানালায়। আমি দেখতে পাচ্ছি, খুব ভেঙে পড়েছেন আপনি। কবিতা পড়তে ও শুনতে যদিও আমি অত্যন্ত ভয় পাই, তবু নিজের একটা প্রাচীন কবিতা আজ আপনাকে শোনাই: আমি শুধু এক দরিদ্র জ্যোতিষী/ ধরে আছি গাঢ় অন্ধকারে তোমার দক্ষিণ হাত;/ ভয় কী, তুমি পার হয়ে যাবে এই/ তুফানি ঝড়ের রাত।

আপনি নিজেই আপনার ভাগ্য নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন শতকরা ৯০ থেকে ৯৬ ভাগ। বাকিটা আমরা ফেট বা নিয়তি বলতে পারি। ভাগ্য অনেক সময় অনির্দিষ্ট কারণে আপনা থেকেও গতিপথ বদলাতে পারে। এখানে রাশিচক্রে আমি ‘নিউমারলজি’ বা ‘সংখ্যা-জ্যোতিষ’ পদ্ধতি প্রয়োগ করেছি— কাওসার আহমেদ চৌধুরী

Post A Comment: