একদিকে মুস্তাফিজুর রহমান হায়দ্রাবাদের জয়ে মধ্যমণি হয়ে থাকছেন দারুণ পারফরমেন্সের সুবাদে, অন্যদিকে দল জিতলেও 'অনুজ্জ্বল' হয়ে থাকছেন সাকিব আল হাসান!

বল হাতে শুরুর উইকেট নিয়েছেন, ৪ রানেই সাজঘরে পাঠান ভয়ঙ্কর ফ্যাফ ডু প্লেসিসকে। অবশ্য পুরো চার ওভার বল করার সুযোগ না পেলেও একেবারে খারাপ করেননি। ৩ ওভারে ১৪ রানে ১ উইকেট। পরে ব্যাট হাতে নামার সুযোগ মিলল চার নম্বরে। তবে সেটি হেলায় ছুঁড়ে এসেছেন। ৯ বলের মুখোমুখি হয়ে নামের পাশে ৩ রান যোগ করে সাজঘরে ফিরেছেন সাকিব-সুলভ এক ভুল শটে! তাতে অবশ্য কলকাতার জয়ে কোন বিঘ্ন ঘটেনি। রোববার দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে পুনকে ২ উইকেটে হারিয়ে মাঠ ছেড়েছে কলকাতা।

মহারাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে নির্ধারিত ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৬০ রানের লড়াই করার পুঁজি তুলেছিল মহেন্দ্র সিং ধোনির রাইজিং পুনে সুপারজায়ান্টস। জবাবে শেষ দিকে দ্রুত কয়েকটি উইকেট হারিয়ে লড়াই করেই জয়ে পৌঁছায় কলকাতা নাইট রাইডার্স। ৮ উইকেট হারিয়ে ৩ বল হাতে রেখেই জয় তুলে নেয় তারা।

পুনেকে বড় সংগ্রহ এনে দেয় আজিঙ্কা রাহানের ৬৭ রান। দলটির উদ্বোধনী ৪ চার ৩ ছয়ে ৫২ রানে নিজের ইনিংসটি সাজিয়েছেন। এছাড়া স্টিভেন স্মিথ ৩১, থিসারা পেরেরা ১২, অ্যালিবি মরকেলের ১৬ রানে সংগ্রহের চাকা সচল রাখেন। শেষদিকে অধিনায়ক ধোনির ২ চার ১ ছয়ে ১২ বলে অপরাজিত ২৩ সংগ্রহটা দেড়শো পার করে নেয়।

কেকেআরের হয়ে ১টি করে উইকেট নিয়েছেন সাকিব, নারিন, সতিশ ও যাদব।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে রানে থাকা উথাপ্পা শূন্যতে সাজঘরে হাঁটা দিলে অন্য উদ্বোধনী গৌতম গম্ভীরও ১১ রানে ফিরে যান। দ্রুত অধিনায়ককে অনুসরণ করেন সাকিব। এরপরই সূর্যকুমার যাদবের থেকে পাল্টা প্রতিরোধে পড়ে পুনে। যাদব ৬ চার ও ২ ছয়ে ৪৯ বলে ৬০ রানে ফিরেছেন।

যাদবকে যোগ্য সঙ্গ দেওয়া ইউসুফ পাঠান ২টি করে চার-ছয়ে ২৭ বলে ৩৬ রানে ফেরেন। মাঝে আন্দ্রে রাসেল ১৭, রাজগোপাল সতিশ ১০ রানে ফিরলে একসময় শঙ্কায় পড়ে যায় কেকেআর শিবির। কিন্তু চাওলার ৮ ও উমেশ যাদবের অপরাজিত ৭ দলকে জয়ে পৌঁছে দেয়।

পুনের হয়ে ২টি করে উইকেট নিয়েছেন মরকেল, পেরেরা ও রজত ভাটিয়া।
এতে ৫ ম্যাচে ৪ জয়ে ৮ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষেই থাকল কেকেআর। সমান ম্যাচে ৪ হারে টেবিলের সাতে পুনে।

Post A Comment: