ঘরের মাঠে চলমান টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে এবার স্বাগতিক দলের সেমিফাইনালের অপেক্ষা। টুর্নামেন্টের চার শীর্ষ দলের দুটি বুধবার মাঠের লড়াইয়ে মুখোমুখি হয়েছিল। তাতে নিউজিল্যান্ডকে উড়িয়ে ফাইনালে উঠেছে ইংল্যান্ড। আজ বৃহস্পতিবার ইংলিশদের সঙ্গী নির্বাচনের ম্যাচে দ্বিতীয় সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে ভারত ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় সেমিটি শুরু হবে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সড়ে ৭টায়। সুপার টেন পর্বে গ্রুপ-১ এর শীর্ষ দল হিসেবে সেরা চারে জায়গা করে নিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আর গ্রুপ-২ এর রানার্সআপ হয়ে সেমিফাইনালে যায় ভারত। আজকে ম্যাচ যারা জিতবে, তারা ইডেন গার্ডেন্সে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৩ এপ্রিল ফাইনাল খেলবে। মূলপর্বের খেলায় গ্রুপ-২ থেকে স্বাগতিক ভারত ৪ ম্যাচে তিনটিতে জয় পায়। অন্যদিকে সেরা চারের টিকিট কাটার পথে গ্রুপ-১ থেকে চার ম্যাচে তিনটি জয় ও একটি হার নিয়ে ৬ পয়েন্ট অর্জন করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তারা নিজ গ্রুপের অপর দল ইংল্যান্ডের সমান পয়েন্ট নিয়েও রানরেটে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের (+০.৩৫৯), আর ইংলিশরা (+০.১৪৫) রানরেট নিয়ে মূল পর্ব শেষ করেছিল। রানার্সআপ হওয়ায় ভারতের অবশ্য সুবিধাই হয়েছে! এতে সেমিতে শক্তিশালী ইংল্যান্ডকে এড়াতে পেরেছে তারা। যদিও প্রতিপক্ষ ক্যারিবীয়রাও কম শক্তিশালী নয়। ভারতীয়রা অভিজ্ঞতা ও নবীনের সমন্বয়ে দারুণ একটি দল। বিশ্ব ক্রিকেটে তাদের পারফরমেন্সটাও ধারাবাহিক। বাংলাদেশের মাটিতে এশিয়া কাপের চ্যাম্পিয়ন দলটি তার আগে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন অজিদের তাদেরই মাটিতে টি-টুয়েন্টিতে ৩-০ তে হোয়াইটওয়াশের লজ্জায় ডুবিয়ে এসেছে। ঘরের মাঠে চেনা দর্শকের সামনে ধোনি বাহিনী বরাবরই ভয়ঙ্কর! ভারত মূলপর্বের বাধা উতরে যেতে ওঠানামা পারফরমেন্সের মধ্য দিয়ে পার হয়েছে। হেরে শুরু করে বাঁচা-মরার ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে এক রানে জিতে সেমির রাস্তা খুঁজে নিয়েছে তারা। আর ক্যারিবীয়রা উড়ন্ত পারফরমেন্স দিয়ে। দ্বিতীয় সেমির দুদলেই আছে এক ঝাঁক করে মারকুটে টি-টুয়েন্টি উপযোগী ব্যাটিং-তুর্কি। ভারতীয়দের মূল শক্তিটা অবশ্য ব্যাটিংয়ে। টপ অর্ডারে ধাওয়ান, রোহিত আর দুর্দান্ত ফর্মে থাকা কোহলি নিজেদের দিনে প্রতিপক্ষ বোলারদের কাঁপিয়ে দিতে পারেন। উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান ধোনি, রায়নার সঙ্গে মিডলঅর্ডারে আলো ছাড়াতে পারতেন যুবরাজ। কিন্তু চোট তার বিশ্বকাপ শেষ করে দিয়েছে। অলরাউন্ডার জাদেজা, পান্ডে অবশ্য মিডলঅর্ডারে ভারসাম্য এনে দিয়েছে দলটিকে। শেষ দিকে জাদেজা বা অশ্বিনের ব্যাটিংটা তাদের বাড়তি পাওয়া! তার থেকে বরং এই দুজনের কার্যকরী স্পিন বোলিংয়ে প্রতিপক্ষকে বেশ ভোগাতে ওস্তাদ ভারত। স্পিনে প্রতিপক্ষকে চেপে ধরতে পারেন রায়নাও। আর পেসে ঝড় তুলতে নেহরা-বুমরাহরা তো আছেনই। অন্যদিকে ক্রিকেটের ছোট সংস্করণের বড় বিনোদন ক্রিস গেইলের উপস্থিতিতে ক্যারিবীয়রাও কম যায় না। নিজেদের দিনে প্রতিপক্ষকে গুঁড়িয়ে দিতে সক্ষম তারাও। যাতে কঠিন পরীক্ষায় পড়তে হতে পারে ভারতকে। দলে সেখানে শুরুর ঝড় তুলতে পারেন দুর্দান্ত ফর্মে থাকা গেইল। নির্ভরতার প্রতীক হয়ে ওঠা স্যামুয়েলস থাকছেন। তাদের মূল শক্তি এক ঝাঁক অলরাউন্ডার। স্যামি বা রাসেল মুহূর্তেই ম্যাচের গতিপথ পাল্টে দিতে সক্ষম। স্পিনে সুলেমান বেন গত কিছুদিন ধরেই ব্যাটসম্যানদের পরীক্ষা নিয়ে চলছেন। সব মিলিয়ে ভারত-ওয়েস্ট ইন্ডিজের শক্তিমত্তায় কিছুটা তারতম্য থাকছে। ঘরের মাঠ, চেনা দর্শক আর অভিজ্ঞতার সুবিধাটা ভারত ভালোভাবেই তুলে নিতে পারে। বরাবরই দাপুটে ক্রিকেট খেলে আসছে তারা। কিন্তু মারকুটে ক্রিকেটের নির্দিষ্ট দিনে যেকারো দিকেই হেলে যেতে পারে ম্যাচ। আলো থাকবে কোহলি-গেইলের দিকেও। ফাইনালে ইংল্যান্ডের সঙ্গী খোঁজার সেমিতে গেইল-কোহলি লড়াইটা যেন প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ হয়ে ওঠে সেই প্রত্যাশাই বিশ্বের ক্রিকেটপ্রেমীরা।

    ঘরের মাঠে চলমান টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে এবার স্বাগতিক দলের সেমিফাইনালের অপেক্ষা। টুর্নামেন্টের চার শীর্ষ দলের দুটি বুধবার মাঠের লড়াইয়ে মুখোমুখি হয়েছিল। তাতে নিউজিল্যান্ডকে উড়িয়ে ফাইনালে উঠেছে ইংল্যান্ড। আজ বৃহস্পতিবার ইংলিশদের সঙ্গী নির্বাচনের ম্যাচে দ্বিতীয় সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে ভারত ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় সেমিটি শুরু হবে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সড়ে ৭টায়।     

 

সুপার টেন পর্বে গ্রুপ-১ এর শীর্ষ দল হিসেবে সেরা চারে জায়গা করে নিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আর গ্রুপ-২ এর রানার্সআপ হয়ে সেমিফাইনালে যায় ভারত। আজকে ম্যাচ যারা জিতবে, তারা ইডেন গার্ডেন্সে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৩ এপ্রিল ফাইনাল খেলবে।

মূলপর্বের খেলায় গ্রুপ-২ থেকে স্বাগতিক ভারত ৪ ম্যাচে তিনটিতে জয় পায়। অন্যদিকে সেরা চারের টিকিট কাটার পথে গ্রুপ-১ থেকে চার ম্যাচে তিনটি জয় ও একটি হার নিয়ে ৬ পয়েন্ট অর্জন করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তারা নিজ গ্রুপের অপর দল ইংল্যান্ডের সমান পয়েন্ট নিয়েও রানরেটে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের (+০.৩৫৯), আর ইংলিশরা (+০.১৪৫) রানরেট নিয়ে মূল পর্ব শেষ করেছিল।

রানার্সআপ হওয়ায় ভারতের অবশ্য সুবিধাই হয়েছে! এতে সেমিতে শক্তিশালী ইংল্যান্ডকে এড়াতে পেরেছে তারা। যদিও প্রতিপক্ষ ক্যারিবীয়রাও কম শক্তিশালী নয়। ভারতীয়রা অভিজ্ঞতা ও নবীনের সমন্বয়ে দারুণ একটি দল। বিশ্ব ক্রিকেটে তাদের পারফরমেন্সটাও ধারাবাহিক। বাংলাদেশের মাটিতে এশিয়া কাপের চ্যাম্পিয়ন দলটি তার আগে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন অজিদের তাদেরই মাটিতে টি-টুয়েন্টিতে ৩-০ তে হোয়াইটওয়াশের লজ্জায় ডুবিয়ে এসেছে।

ঘরের মাঠে চেনা দর্শকের সামনে ধোনি বাহিনী বরাবরই ভয়ঙ্কর! ভারত মূলপর্বের বাধা উতরে যেতে ওঠানামা পারফরমেন্সের মধ্য দিয়ে পার হয়েছে। হেরে শুরু করে বাঁচা-মরার ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে এক রানে জিতে সেমির রাস্তা খুঁজে নিয়েছে তারা। আর ক্যারিবীয়রা উড়ন্ত পারফরমেন্স দিয়ে। দ্বিতীয় সেমির দুদলেই আছে এক ঝাঁক করে মারকুটে টি-টুয়েন্টি উপযোগী ব্যাটিং-তুর্কি।

ভারতীয়দের মূল শক্তিটা অবশ্য ব্যাটিংয়ে। টপ অর্ডারে ধাওয়ান, রোহিত আর দুর্দান্ত ফর্মে থাকা কোহলি নিজেদের দিনে প্রতিপক্ষ বোলারদের কাঁপিয়ে দিতে পারেন। উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান ধোনি, রায়নার সঙ্গে মিডলঅর্ডারে আলো ছাড়াতে পারতেন যুবরাজ। কিন্তু চোট তার বিশ্বকাপ শেষ করে দিয়েছে। অলরাউন্ডার জাদেজা, পান্ডে অবশ্য মিডলঅর্ডারে ভারসাম্য এনে দিয়েছে দলটিকে। শেষ দিকে জাদেজা বা অশ্বিনের ব্যাটিংটা তাদের বাড়তি পাওয়া! তার থেকে বরং এই দুজনের কার্যকরী স্পিন বোলিংয়ে প্রতিপক্ষকে বেশ ভোগাতে ওস্তাদ ভারত। স্পিনে প্রতিপক্ষকে চেপে ধরতে পারেন রায়নাও। আর পেসে ঝড় তুলতে নেহরা-বুমরাহরা তো আছেনই।

অন্যদিকে ক্রিকেটের ছোট সংস্করণের বড় বিনোদন ক্রিস গেইলের উপস্থিতিতে ক্যারিবীয়রাও কম যায় না। নিজেদের দিনে প্রতিপক্ষকে গুঁড়িয়ে দিতে সক্ষম তারাও। যাতে কঠিন পরীক্ষায় পড়তে হতে পারে ভারতকে। দলে সেখানে শুরুর ঝড় তুলতে পারেন দুর্দান্ত ফর্মে থাকা গেইল। নির্ভরতার প্রতীক হয়ে ওঠা স্যামুয়েলস থাকছেন। তাদের মূল শক্তি এক ঝাঁক অলরাউন্ডার। স্যামি বা রাসেল মুহূর্তেই ম্যাচের গতিপথ পাল্টে দিতে সক্ষম। স্পিনে সুলেমান বেন গত কিছুদিন ধরেই ব্যাটসম্যানদের পরীক্ষা নিয়ে চলছেন।

সব মিলিয়ে ভারত-ওয়েস্ট ইন্ডিজের শক্তিমত্তায় কিছুটা তারতম্য থাকছে। ঘরের মাঠ, চেনা দর্শক আর অভিজ্ঞতার সুবিধাটা ভারত ভালোভাবেই তুলে নিতে পারে। বরাবরই দাপুটে ক্রিকেট খেলে আসছে তারা। কিন্তু মারকুটে ক্রিকেটের নির্দিষ্ট দিনে যেকারো দিকেই হেলে যেতে পারে ম্যাচ। আলো থাকবে কোহলি-গেইলের দিকেও। ফাইনালে ইংল্যান্ডের সঙ্গী খোঁজার সেমিতে গেইল-কোহলি লড়াইটা যেন প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ হয়ে ওঠে সেই প্রত্যাশাই বিশ্বের ক্রিকেটপ্রেমীরা।

Post A Comment: