কেমন সাঁজ হওয়া উচিত আমাদের কর্মজীবি নারীদের।

কেমন সাঁজ হওয়া উচিত আমাদের কর্মজীবি নারীদের।
কেমন সাঁজ হওয়া উচিত আমাদের কর্মজীবি নারীদের।

কর্মজীবী নারীদের ব্যস্ততা তুলনামূলক একটু বেশিই থাকে। তাই নিজেদের সাজ-পোশাকের দিকে নজর দেয়ার জন্য যথেষ্ট সময় তাদের অনেক সময়ই মেলে না। তবে দিনের বেশিরভাগ সময় যেহেতু অফিসেই কাটাতে হয়, সেক্ষেত্রে সাজ-পোশাকের দিকে নজর দিতেই হবে। ফ্যাশন, রুচিশীলতা- সবকিছু যাতে একসঙ্গে ফুটে ওঠে, সেদিকেও নজর রাখতে হবে।

কর্মজীবী নারীরা যে পোশাকই পরুন না কেন পোশাক নির্বাচনের সময় মাথায় রাখবেন আপনার পোশাকটি যেন মার্জিত রুচির হয়। পোশাক থেকে সাজগোজে কখনই যেন উগ্রতা প্রকাশ না পায়। গরমের দিনে অফিসের পোশাকের জন্য হালকা রঙ বাছাই করা উচিৎ। যারা এয়ারকন্ডিশনড পরিবেশে কাজ করেন না তাদের জন্য সুতি পোশাকই ভালো। কারণ সুতি কাপড় সহজেই ঘাম শুষে নেয়। কর্মজীবী মেয়েদের ব্যাগ একটু বড় হওয়া উচিত। কারণ তাদের ব্যাগের সাইজ এমন হওয়া উচিত যেখানে প্রয়োজনীয় কার্ড, কাগজপত্র, নিজের আইডি কার্ড, টিফিন বক্স, পানির বোতল ইত্যাদি সব জিনিসের জায়গা হয়।

অফিসের সাজ সবসময়ই হালকা হওয়া উচিত। অফিসের সাজের ক্ষেত্রে মুখে হালকা ফাউন্ডেশন এবং ফেসপাউডার ব্যবহার করলে ভালো লাগবে। চোখে মাশকারা, কাজল বা আই লাইনার আর ঠোঁটে হালকা লিপস্টিক লাগালেই আপনার অফিসের সাজ পূর্ণতা পাবে। সুগন্ধি ব্যবহার করতে ভুলবেন না। ভালো কোনো ব্রান্ডের ডিউডোরেন্ট বা পারফিউম ব্যবহার করুন।

অফিসে গহনা পরার ক্ষেত্রে ছোট ছোট গহনা পরা ভালো। জুতা এবং ব্যাগের রঙ কাছাকাছি শেডের মধ্যে বাছাই করলে দেখতে দারুণ লাগবে। ল্যাপটপ বহন করতে হলে বড় ব্যাগ বাছাই করুন যেন ল্যাপটপের সঙ্গে অন্যান্য জিনিসও অনায়াসে নেওয়া যায়।

পোশাক এবং ব্যাগের মতো দৃশ্যমান না হলেও স্যান্ডেলও কিন্তু ফ্যাশনের বাইরে নয়। অফিসে যাওয়ার জন্য এমন জুতা পছন্দ করা উচিত যা পরলে হাঁটা আরামদায়ক হয়। সেই সঙ্গে এর ফ্যাশনটাও বজায় থাকে। শব্দ সৃষ্টি করে এমন জুতো পরিহার করুন।অফিসে কাজের ফরমাল পরিবেশে হিলের খটখট শব্দ খুব একটা শোভন নয়।


কর্মজীবী মানেই অনবরত কাজ করে যাওয়া নয়। তাই যতো ব্যস্তই থাকুন না কেন প্রতিদিন নিজের জন্য কিছুটা সময় বের করে নিজের যত্ন নিন। আপনি সুস্থ ও সুন্দর থাকলেই পরিবার ও সমাজ থাকবে সুন্দর।

Post A Comment: