আকর্ষণীয় চাকরি তাও আবার ফেসবুক চালিয়েই!!!

আকর্ষণীয় চাকরি তাও আবার ফেসবুক চালিয়েই!!!
আকর্ষণীয় চাকরি তাও আবার ফেসবুক চালিয়েই!!!
মার্ক জাকারবার্গ যখন ২০০৪ সালে ফেসবুক প্রতিষ্ঠা করেন তখন তিনি মোটেই কল্পনা করতে পারেননি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম বিশ্বব্যাপী এতটা প্রভাব বিস্তার করবে। পরে বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম দিয়ে দুনিয়াকে বদলে দেওয়া মানুষটি বার বারই জানিয়েছেন এই কথা। মাত্র ১২ বছরের কালের আবর্তে ফেসবুক এখন মর্ত্যবাসীর সামাজিকীকরণের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ।

তবে যুক্তরাজ্যের সংবাদমাধ্যম দি ইনডিপেনডেন্ট জানাচ্ছে, শুধু যে সামাজিক যোগাযোগের জন্য ফেসবুক ব্যবহার করা হয় সেই ভাবনাটি ভুলে যেতে। কারণ ফেসবুক এখন সামাজিক যোগাযোগের তকমা সরিয়ে হয়ে উঠেছে বিশ্বের খবর এবং যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম।

ইনডিপেনডেন্টের প্রতিবেদকের ভাষ্যমতে, শুধু বন্ধুদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেই যে ফেসবুক ব্যবহার করা হয়, সে ধারণা এখন অতীত। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারের দক্ষতার ওপর ভিত্তি করে এখন মিলছে চাকরি। বিশ্বের তাবৎ আইটিসহ বড় বড় প্রতিষ্ঠানে একটি অত্যাবশ্যকীয় পদ ‘সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজার’।
কী কাজ এই সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজারের? বিভিন্ন খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠানের সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজারের সাথে কথা বলে ইনডিপেনডেন্ট জানাচ্ছে, একটি প্রতিষ্ঠানের সামাজিক ভাবমূর্তি গড়ে তোলে সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজাররা। প্রতিষ্ঠানটির কাঙ্ক্ষিত মানুষদের কাছে নানা খবর আকর্ষণীয়ভাবে পৌঁছানো, প্রতিষ্ঠানের সুনাম, ভাবমূর্তি গড়ে তোলা ও ধরে রাখা, গ্রাহকদের সমস্যা সমাধান এ সবই সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজারের কাজ।

তবে এটা প্রচলিত ১০টা-৫টার চাকরি নয়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারীদের চাহিদা যারা বোঝে তাদের ব্যাপক সুযোগ রয়েছে এ চাকরিতে।

এই প্রসঙ্গে অ্যাপল করপোরেশনের সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজার ইলেন স্টার্ক জানান, এটা চাকরির চাইতে বেশি কিছু। একজন কাস্টমার ম্যানেজার দিনে সর্বোচ্চ ৩০ জন মানুষকে সেবা দিতে পারে। আর এখানে আপনি দিনে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে যুক্ত থাকছেন কোটি কোটি গ্রাহকের সাথে। প্রতিষ্ঠানের ভালো খবর, সাফল্য ইত্যাদি জানাচ্ছেন তাদের।

ইলেন স্টার্ক জানান, একজন দক্ষ সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজার মাসে ৪০ হাজার থেকে ক্ষেত্রবিশেষে আশি হাজার পাউন্ড (৯১ লাখ টাকা) আয় করে থাকেন।

Post A Comment: