ফোনের অ্যাপ ঠেকাবে আত্মহত্যা।


ফোনের অ্যাপ ঠেকাবে আত্মহত্যা
ফোনের অ্যাপ ঠেকাবে আত্মহত্যা


তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে মোবাইল ফোনে অনেক নিত্যনতুন প্রযুক্তির সংযোজন হচ্ছে। ই-মেইল থেকে শুরু করে হোয়াটসআপে কথা বলা এখন সবই হয় এক মোবাইলে। তেমনই একটি ব্রিটেনের ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস মার্কিন গবেষকদের সঙ্গে মিলে একটি অ্যাপ তৈরির কাজ করছে যেটা মানুষকে আত্মহত্যা করা থেকে বিরত রাখতে সাহায্য করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এই অ্যাপের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকরা আত্মহত্যা প্রবণ ব্যক্তির সারাদিনের কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণ করতে পারবে।

এর মাধ্যমে রোগীর সব ধরনের ডিজিটাল যোগাযোগ যেমন-ইমেইল, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম এবং ফোন কল পর্যন্ত পর্যবেক্ষণের আওতায় থাকবে, যার ফলে সম্ভাব্য যেকোনো আত্মহত্যার উদ্যোগ সম্পর্কে আগাম ধারণা করা যাবে।

লিভারপুল ভিত্তিক মার্সিকেয়ার এবং স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটি এখন আলোচনা করছে, যাতে করে আগামী জুন মাস নাগাদ এরকম একটি অ্যাপের প্রোটোটাইপ তৈরি করা যায় এবং আগামী বছরের জানুয়ারি মাস নাগাদ একজন আত্মহত্যা প্রবণ ব্যক্তির উপর এই অ্যাপটির পরীক্ষা চালানো যায়। বলা হচ্ছে, যেসব আত্মহত্যা প্রবণ ব্যক্তি স্বেচ্ছায় তাদের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করতে দেবে তাদেরকেই এই অ্যাপ চিকিৎসার আওতায় রাখা হবে।

কিন্তু অ্যাপ দিয়ে কিভাবে বোঝা যাবে একজন মানুষ আত্মহত্যা করতে যাচ্ছে? ধরা যাক, অ্যাপের মাধ্যমে দেখা গেল সংশ্লিষ্ট আত্মহত্যা প্রবণ ব্যক্তি এমন এক এলাকার দিকে যাচ্ছে যেটা আত্মহত্যার একটি হটস্পট, অর্থাৎ এর আগে বহু মানুষ এখানে আত্মহত্যা করেছে। কিংবা সে তার একজন বন্ধুকে বলছে, তার আর বেঁচে থাকতে ইচ্ছে করছে না। সঙ্গে সঙ্গেই অ্যাপটি সংশ্লিষ্ট চিকিৎসককে সতর্ক করে দেবে, যে উপযুক্ত ব্যক্তি বা কর্তৃপক্ষকে নিয়োগ করবে তরিৎ ব্যবস্থা নেবার জন্য।

মার্সিকেয়ারের মেডিকেল ডিরেক্টর ড. ডেভিড ফিয়ার্নলে বলেন, এই অ্যাপের সম্ভাবনা অনেক। আমাদের ধারণা যাদের মধ্যে নিজেদেরকে ক্ষতি করার প্রবণতা অনেক বেশি তাদের ব্যাপারে আমরা এখনকার চাইতে অনেক বেশি কার্যকরভাবে পূর্বাভাস পাব। ফলশ্রুতিতে তাদের জীবন রক্ষা করতেও আমরা কার্যকর ব্যবস্থা নিতে পারবো।

Post A Comment: