টয়লেট মিউজিয়াম


                            টয়লেট মিউজিয়াম


টয়লেট তো টয়লেটই তাই না? সেটা তো আর বিলাসবহুল শোওয়ার ঘর নয়। পৃথিবীর সবচেয়ে নোংরা এবং বিরক্তিকর স্থান হিসেবেই পরিচিত টয়লেট। কিন্তু এ আবার কেমন কথা? এবার লোকজন ছুটছেন টয়লেট দেখতে। এও আবার সম্ভব নাকি? তেমন অসম্ভবকেই সম্ভব করেছে জাপান। খবর বিবিসি’র।

হ্যাঁ, সব রকমের টয়লেট নিয়ে জাপানে ৩ মাস যাবত চালু হয়েছে টয়লেট মিউজিয়াম। যা বানাতে খরচ হয়েছে ৬ কোটি মার্কিন ডলার। চালু হওয়ার পর গত ৩ মাসে দেশ-বিদেশ থেকে প্রায় ৩০ হাজার মানুষ এসে দেখে গিয়েছেন এই টয়লেট মিউজিয়াম।

নির্মাতা প্রতিষ্ঠান টোটো জানায়, এ টয়লেট এমন ভাবে নির্মিত যাতে গা গরম করার ব্যবস্থা আছে। আছে যন্ত্রের মাধ্যমে গরম পানিতে ম্যাসাজ করানোর ব্যবস্থা। এয়ার কন্ডিশনার, এয়ার ড্রায়ারসহ পানির তাপমাত্রা ও চাপ বাড়ানো-কমানোর ব্যবস্থা। সুবাস ছড়ানোর জন্য ‘পাওয়ার ডিওডোরাইজার’। সঙ্গে সুন্দর, সুরেলা মিউজিক ‘ওতোহিমে’ শোনার ব্যবস্থা। 

এখানে রয়েছে অটোম্যাটিক সেন্সর। বাথরুমে ঢুকলেই এমনিতেই খুলে যাবে ঢাকনা। ভরে যাবে ব্যাকটেরিয়া নাশকারী পানির ফোয়ারায়। জ্বলে উঠবে ঝকঝকে আলো। এটা সর্বাধুনিক জাপানি প্রযুক্তির টয়লেট। এর নাম রাখা হয়েছে ‘টোটো’। শুধু এই সর্বাধুনিক টয়লেটই নয়, একেবারে আদিকালের বাথরুম থেকে বর্তমানের ‘টোটো’ পর্যন্ত রয়েছে এখানে। 

সর্বাধুনিক টয়লেট নির্মাতা সংস্থা ‘টোটো’ ইতিমধ্যেই এমন ৪ কোটি টয়লেট বানিয়ে বিভিন্ন দেশে পাঠিয়েছে।

Post A Comment: