শীতে নবজাতকের যত্ন নেবেন যেভাবে


শীতে নবজাতকের যত্ন নেবেন যেভাবে
শীতে নবজাতকের যত্ন নেবেন যেভাবে
নবজাতকের যত্নে সবসময়ই সতর্ক থাকতে হয়। তবে শীতকালে নিতে হয় একটু বাড়তি যত্ন। কারণ মায়ের গর্ভ থেকে পৃথিবীতে আসার পর আবহাওয়ার সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে কিছুটা সময় লাগে নবজাতক শিশুদের। তাই শীতের সময় যেসব শিশু ভূমিষ্ঠ হয়, তাদের যত্নে থাকতে হবে বাড়তি সতর্ক।

দিনের বেলা জানালা খুলে রোদ ও নির্মল বাতাস ঘরে ঢুকতে দিন। ঘরের মধ্যে কাপড় না শুকিয়ে অবশ্যই রোদে শুকান। বাচ্চাকে দোলনায় বা আলাদা মশারির নিচে না রেখে মায়ের কোলঘেঁষে শোয়াবেন। এতে বাচ্চা উষ্ণ থাকবে, মায়ের সঙ্গে আন্তরিকতা বাড়বে এবং বুকের দুধ খাওয়াতে সুবিধা হবে।

ঘরের তাপমাত্রা ২৫ ডিগ্রি হলে, শিশুকে সুতি কাপড় পরিয়ে কাঁথা দিয়ে মুড়ে রাখুন। এই মাত্রার নিচে হলে সোয়েটার ব্যবহার করতে পারেন। 

শিশুকে ঘন ঘন বুকের দুধ খাওয়ান। বুকের দুধে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা থাকে। ফলে শিশু সহজে ঠাণ্ডা, কাশি ইত্যাদিতে আক্রান্ত হয় না। যেসব শিশু কোনো কারণে বুকের দুধ খায় না বা পায় না, তাদের ক্ষেত্রে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করতে হয়।

রোদে দিতে হলে জানালার পাশে বা ঘরের বারান্দা থেকে রোদ লাগান। তবে নবজাতককে জন্মের সঙ্গে সঙ্গে গোসল করানোর দরকার নেই। বাচ্চার নাভি না শুকানো পর্যন্ত তাকে গোসল করাবেন না। সপ্তাহে দু’দিন গোসল করানোই যথেষ্ট।

গোসলের আগে ঘরের দরজা-জানালা লাগিয়ে নিন। গোসলের জন্য প্রয়োজনীয় হালকা গরম পানি (৪৫০ ডিগ্রি), নরম কাপড় বা স্পঞ্জ, তোয়ালে, ভ্যাসলিন, ডায়াপার ইত্যাদি সব হাতের কাছে গুছিয়ে নিয়ে গোসল করাতে বসুন।

পরিবারের কোনো সদস্য বা কোনো আত্মীয়ের সর্দি, কাশি, ভাইরাস জ্বর ইত্যাদি হলে তাদেরকে মা ও শিশুর কাছে আসা থেকে বিরত রাখুন। শিশুকে শীতকালে ঘরের বাইরে নেয়া থেকে বিরত থাকুন।

Post A Comment: