সারাদিন অফিস করা, কম্পিউটারের সামনে প্রচুর সময় ব্যয় করা, অপর্যাপ্ত ঘুম ও খাদ্যাভ্যাসজনিত বিভিন্ন সমস্যার ভুক্তভোগী বেশিরভাগ চাকরিজীবী। বিশেষজ্ঞদের মতে, স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন করতে হাতের কাছে খাবার পানি রাখা, বাসায় রান্না করা খাবার নিয়ে অফিসে যাওয়া ইত্যাদি বিষয়ের প্রতি যত্নবান হতে হবে।
 
পানির বোতল সঙ্গে রাখা
দীর্ঘসময় ধরে কাজ করার সময় পানি খাওয়ার কথা ভুলে যান অনেকেই। তাই সবসময় সঙ্গে একটি পানির বোতল রাখা এবং কিছুক্ষণ পরপরই পানি পান করা উচিত। পাশাপাশি ফলের রসও গ্রহণ করা যেতে পারে।
 
ঘরে তৈরি খাবার খাওয়া
শরীর ভালো রাখতে ঘরে তৈরি বিভিন্ন সালাদ বা স্বাস্থ্যকর খাবারের কোনো বিকল্প নেই। ঘরে খেতে পারলে তো ভালোই। তবে কাজের ব্যস্ততার কারণে অনেকের ক্ষেত্রেই তা সম্ভব হয় না। তাই বাইরে খাওয়া কমিয়ে বাসা থেকে তৈরি খাবার অফিসে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা কার উচিৎ।
 
বিরতি নিয়ে কাজ করা
তাড়া যতই থাকুক প্রতি এক ঘণ্টা কাজ করার পর একদু্ই মিনিট চোখ বন্ধ করে বিশ্রাম নেওয়া উচিৎ। এতে মস্তিষ্ক পরিষ্কার হয় এবং সচল থাকে।
 
চেয়ারে বসায় সাবধানতা
দীর্ঘসময় ধরে চেয়ারে বসে থাকার কারণে মেরুদণ্ডের ক্ষতি হয়। তাই চেয়ারে বসার সময় সামনে ঝুঁকে না থেকে হেলান দিয়ে বসার অভ্যাস করুন। আর খেয়াল রাখুন পিঠ যেন চেয়ারে হেলান দেওয়ার সঙ্গে সোজা থাকে।
 
পর্যাপ্ত ঘুম
শরীরের প্রয়োজনের তুলনায় আধা ঘণ্টা কম ঘুমানো আপনার স্বাস্থ্য, মানসিকতা এবং কাজের উপর অল্প এবং দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারে। তাই নিয়মিত কমপক্ষে আট ঘণ্টা ঘুমানো জরুরি।
 
চা, কফির বদঅভ্যাস
চা, কফি, কোমল পানীয় ইত্যাদি ঘুমের উপর ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এগুলো থেকে বিরত থাকা উচিৎ। পরিবর্তে সকালে ঘুম থেকে উঠে এক গ্লাস ফলের শরবত বা গ্রিন টি খাওয়া যেতে পারে।

Post A Comment: