নাম শুনে মনে হবে জার্মানির ম্যাগডেবার্গ জলসেতুটি  পানি দিয়ে তৈরি। আসলে কিন্তু তা নয়। সেতুটি তৈরি হয়েছে স্টিল আর কংক্রিট দিয়ে। এটি তৈরিতে ২৪ হাজার মেট্রিক টন স্টিল আর ৬৮ হাজার ঘনমিটার কংক্রিট লেগেছে। তবে সেতুটি মোটরগাড়ি, ট্রেন বা অন্য কোনো স্থলযান চলাচলের জন্য  তৈরি করা হয়নি। বরং এই সেতু দিয়ে বাণিজ্যিক জাহাজ, স্টিমার, লঞ্চ এসব জলযান চলাচল করে। এটি ২০০৩ সালের অক্টোবর মাসে চালু করা হয়।

পূর্ব ও পশ্চিম জার্মানির সীমান্তে এলবা নদীর ওপরে তৈরি করা হয়েছে সেতুটি। শহরের নাম ম্যাগডেবার্গ। শহরটি বার্লিনের  খুব কাছে। অ্যামিউজিং প্ল্যানেট ডটকমের এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ৯১৮ মিটার দীর্ঘ ও ৩৪ মিটার প্রশস্ত এই সেতুর পানির গভীরতা ৪.২৫ মিটার। তাই এর ওপর দিয়ে সহজেই এসব জলযান চলাচল করতে পারে।১৯১৯ সালে প্রথম এই সেতু নির্মাণের প্রস্তাব দেওয়া হয়। তারপর সেতুটির গুরুত্ব বুঝতে পেরে জার্মান সরকার ১৯৩৮ সালে এর নির্মাণ কাজ শুরু করে।

কিন্তু দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কারণে কাজ বন্ধ হয়ে যায়। এরপর অনেক দিন  কেউই আর সেতুটি নিয়ে কিছু ভাবেনি। পরবর্তী সময় দুই জার্মানি একত্র হওয়ার পর ১৯৯৭ সালে ফের এর কাজ শুরু হয়।

কাজ শেষ হতে সময় লাগে ছয় বছর। প্রায় পঞ্চাশ কোটি  ইউরো দিয়ে তৈরি সেতুটি বার্লিনের দুটি বিখ্যাত খাল এলবা-হাভেল ও মিটারল্যান্ড নামের দুটি ক্যানালকে যুক্ত করেছে। বলা যায়, পূর্ব ও পশ্চিম জার্মানিকে যুক্ত করেছে।

বাণিজ্যিক এই  জাহাজগুলো রাইন নদীতে, বার্লিন বন্দরে সহজে পৌঁছাতে পারে। এতে প্রায় ১২ কিলোমিটার পথ কম পাড়ি দিতে হয়।

তবে বাণিজ্যিক গুরুত্বের পাশাপাশি পর্যটকদের নজর কেড়েছে আজব এই ওয়াটার ব্রিজ। প্রতিদিন হাজার হাজার দর্শক এই সেতু দেখতে এখানে ভিড় জমায়


Post A Comment: