যুক্তরাষ্ট্রের পুলিশ বাহিনী এ বছর গড়ে প্রতিদিন দুজনের বেশি মানুষকে হত্যা করেছে। গতকাল রোববার ওয়াশিংটন পোস্ট পত্রিকার খবরে এ কথা বলা হয়েছে। কেন্দ্রীয় সরকারের পূর্ণাঙ্গ তথ্য-উপাত্ত না থাকায় পত্রিকাটি নিজস্ব তথ্যভান্ডারের হিসাব ব্যবহার করেছে। খবর এএফপির।


মার্কিন সরকারের হাতে পুলিশের হাতে নিহতের বিষয়ে পূর্ণাঙ্গ উপাত্ত থাকার কোনো উপায় নেই। কারণ, গোটা যুক্তরাজ্যের জাতীয় ও স্থানীয় ১৭ হাজারের মতো পুলিশ কর্তৃপক্ষের এ ধরনের হত্যার তথ্যকেন্দ্রকে জানানোর কোনো বাধ্যবাধকতা নেই।
পুলিশের বিরুদ্ধে প্রাণঘাতী শক্তিপ্রয়োগ নিয়ে চলমান বিতর্কের প্রেক্ষাপটে এ হিসাব করল যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম শীর্ষ প্রভাবশালী পত্রিকাটি। বিশেষ করে কৃষ্ণাঙ্গ ও অন্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কয়েকটি পুলিশি নির্যাতন বা হত্যার ঘটনায় দেশজুড়ে পুলিশের ভূমিকা নিয়ে বিতর্ক চলছে।
ওয়াশিংটন পোস্ট-এর বিশ্লেষণে দেখা গেছে, সার্বিক জনসংখ্যার আপেক্ষিক বিচারে পুলিশের হাতে কৃষ্ণাঙ্গরা নিহত হয়েছে অন্য সংখ্যালঘু বা শ্বেতাঙ্গদের চেয়ে তিন গুণ বেশি হারে। পত্রিকাটি এ বছর যে হত্যাকাণ্ডগুলো পর্যালোচনা করেছে, তার ভিত্তিতেই এ হিসাব। এতে বলা হয়, নিহত ব্যক্তিদের বেশির ভাগের হাতেই মারাত্মক অস্ত্র ছিল, যার মধ্যে আগ্নেয়াস্ত্রই বেশি। তবে ছুরি ও অন্যান্য অস্ত্রও ছিল। খেলনা অস্ত্রধারী বা নিরস্ত্র ছিল ১৬ শতাংশ।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ বছর দেশজুড়ে এ পর্যন্ত অন্তত ৩৮৫ জনকে গুলি করে হত্যা করেছে পুলিশ। তাতে দিনে গড়ে হয় দুজনের বেশি।
সাম্প্রতিক আলোচিত ঘটনাগুলোর একটি হচ্ছে মিজৌরি অঙ্গরাজ্যের ফার্গুসনে কৃষ্ণাঙ্গ তরুণ মাইকেল ব্রাউনকে হত্যার ঘটনা। ব্রাউনের মৃত্যু এবং পরে অভিযুক্ত পুলিশের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ না করার কারণে সেন্ট লুইস নগরের ওই শহরতলিতে ব্যাপক দাঙ্গা হয়। এ ঘটনা দেশব্যাপী পুলিশি নিষ্ঠুরতা নিয়ে চলমান উত্তপ্ত বিতর্কে আরও রসদ জোগায়।

Post A Comment: