দক্ষিণ কোরিয়ার মার্স ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া নিয়ে দেশটির মানুষের মধ্যে ব্যাপক আতঙ্ক বিরাজ করছে। অনেকে মুখোশ বা মুখবন্ধনী পরে চলাফেরা করছে। ছবি: এএফপিদক্ষিণ কোরিয়ায় মার্স ভাইরাস ছড়াচ্ছে। নতুন করে আরও পাঁচজন আক্রান্ত ব্যক্তি চিহ্নিত হয়েছে। এ নিয়ে জনমনে বাড়ছে আতঙ্ক। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আজ বৃহস্পতিবার সাত শতাধিক স্কুল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে জানানো হয়, নতুন পাঁচজন নিয়ে এই ভাইরাসে এখন পর্যন্ত ৩৫ জন আক্রান্ত হয়েছে। মারা গেছে দুজন।

মার্স ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া নিয়ে দেশটির মানুষের মধ্যে ব্যাপক আতঙ্ক বিরাজ করছে। অনেক মানুষ মুখোশ বা মুখবন্ধনী পরে গণপরিবহনে চলাফেরা করছেন।

জনসাধারণের মধ্যে আতঙ্ক কমাতে কাজ করছেন দেশটির কর্মকর্তারা। এই প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে কিন্ডারগার্টেন থেকে শুরু করে কলেজ পর্যন্ত সাত শতাধিক স্কুল বন্ধ করে দেওয়ার পদক্ষেপটি নেওয়া হয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো তাদের ফটক বন্ধ করে রেখেছে।

মার্স ভাইরাস নিয়ে আতঙ্ক দেশের বাইরেও ছড়িয়েছে। কোরিয়া পর্যটন সংস্থা (কেটিও) জানিয়েছে, প্রায় সাত হাজার পর্যটক দক্ষিণ কোরিয়ায় তাঁদের পরিকল্পিত ভ্রমণ বাতিল করেছেন। এই পর্যটকদের অধিকাংশই চীন ও তাইওয়ানের।

মিডল ইস্ট রেসপিরেটরি সিনড্রোম বা মার্স এই প্রথম সৌদি আরবের বাইরে এত ব্যাপক পরিসরে ছড়িয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়ায় ২০ মে মার্স ভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম কোনো ব্যক্তি চিহ্নিত হন। ৬৮ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি সৌদি আরব সফর করেছিলেন।

দক্ষিণ কোরিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, এই ভাইরাসে আরও পাঁচজন আক্রান্ত হয়েছে বলে আজ নিশ্চিত হওয়া গেছে। এ নিয়ে দেশটিতে মার্স ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৩৫ জনে দাঁড়িয়েছে।

সার বিশ্বে এক হাজার ১৬১ জন মার্স ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। মারা গেছে ৪৩৬ জন। ২০ টির বেশি দেশে মার্স ভাইরাস ছড়িয়েছে। সবচেয়ে বেশি প্রাদুর্ভাব সৌদি আরবে। এই ভাইরাসের কোনো চিকিৎসা বা টিকা নেই। ভাইরাসটি প্রাণঘাতী বলে বিবেচিত।
 

Post A Comment: