চীনের সেনাবাহিনী মিয়ানমার সীমান্তের কাছে তাজা গুলি ব্যবহার করে সামরিক মহড়া চালাবে। চীনের সরকারি সংবাদ মাধ্যম সিনহুয়া আজ এ খবর দিয়েছে।


নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সামরিক সূত্রের বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার থেকে এ মহড়া ইউনান প্রদেশে শুরু হবে। কি ধরণের অস্ত্র মহড়ায় ব্যবহার করা হবে বা সেনাবাহিনীর কোন্‌ কোন্‌ ইউনিট এতে অংশ নিবে খবরে সে সম্পর্কে কিছুই জানানো হয় নি।
ইউনান সীমান্ত সংলগ্ন মিয়ানমারের উত্তর পশ্চিমাঞ্চলীয় শান প্রদেশে গেরিলা তৎপরতা বেড়েছে । শান প্রদেশের কোকাং অঞ্চলে ফেব্রুয়ারি মাসে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে মিয়ানমার। ওই অঞ্চলে যখন উত্তেজনা চলছে তখন এই মহড়ার ঘোষণা দেয়া হল।
গত মাসে দক্ষিণ-পশ্চিম চীনের স্থানীয় কর্তৃপক্ষ বলেছে, ওই এলাকায় দুই বিস্ফোরণে একজন চীনাসহ মিয়ানমারের চার নাগরিক আহত হয়েছে। মার্চে মিয়ানমারের জঙ্গিবিমান একটি আখ খেতে বোমা ফেললে পাঁচ চীনা নাগরিক নিহত এবং আটজন আহত হয়।
সীমান্তে টহল দেয়ার জন্য জঙ্গি বিমান পাঠিয়ে এ ঘটনার ক্রুদ্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে বেইজিং। একই সঙ্গে চীনা নাগরিকদের রক্ষায় দৃঢ় প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী লি কেনকিয়াং।
কোকাং এলাকার সঙ্গে চীনের দৃঢ় সম্পর্ক রয়েছে। স্থানীয় লোকজন চীনা ভাষায় কথা বলে এবং চীনের ইউয়ানকে মুদ্রা হিসেবে ব্যবহার করা হয়। এ ছাড়া, লড়াই থেকে বাঁচার আশায় এ এলাকা থেকে হাজার হাজার মানুষ সীমান্ত পাড়ি দিয়ে চীনে আশ্রয় নিয়েছে।

Post A Comment: