প্রবল বর্ষণে বিপর্যস্ত সারাদেশ

টানা প্রবল বর্ষণে বিপর্যস্ত সারাদেশ। কক্সবাজারে গাছ ভেঙ্গে ও পাহাড় ধসে আটজনসহ সারাদেশে দশজনের মৃত্যু এবং আহত হয়েছে প্রায় ৭০ জন। নতুন নতুন এলাকা হয়েছে প্লাবিত। লাখ লাখ মানুষ হয়ে পড়েছে পানিবন্দী। শত শত ঘরবাড়ি ও স্থাপনা হয়েছে ক্ষতিগ্রস্ত। দেশের বিভিন্ন জেলায় প্রকট আকার ধারণ করেছে নদীভাঙ্গন। পানিতে তলিয়ে গেছে শত শত একর ফসলী জমি। নৌপথে ট্রলার চলাচল বন্ধ থাকায় সেন্ট মার্টিনে খাদ্য সঙ্কট দেখা দিয়েছে। ভাঙ্গন ঝুঁকির মুখে রয়েছে ময়মনসিংহের শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন সংগ্রহশালা ও অনেক স্থাপনাসহ জয়নুল উদ্যান এলাকা। ঈশ্বরদীতে মিল চাতালের ৯০ হাজার মণ সিদ্ধ ধানের ক্ষতি হয়েছে। দিনভর বৃষ্টি ও জলাবদ্ধতায় শুক্রবারও চরম দুর্ভোগে পড়ে রাজধানীবাসী। পর্যবেক্ষণাধীন ৮৪টি পানি সমতল স্টেশনের মধ্যে শুক্রবার ৪৬টির পানি বৃদ্ধি এবং ৩৪টির পানি হ্রাস পায়। আর ৫টি নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। 


মৌসুমী বায়ু প্রবল থাকায় দেশে ভারি বর্ষণ হচ্ছে। আজ শনিবারও তা অব্যাহত থাকতে পারে। স্টাফ রিপোর্টার, নিজস্ব সংবাদদাতা, আবহাওয়া অধিদফতর, পানি উন্নয়ন বোর্ড ও হাসপাতাল সূত্রে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।
কক্সবাজার টেকনাফের সেন্টমার্টিনে নারিকেল গাছ ভেঙ্গে পড়ে কোনারপাড়ার নুর মোহাম্মদের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম (২৫) ও তাদের শিশু পুত্র মোঃ জিশানের (৪) মৃত্যু ঘটে। বান্দরবানে পাহাড় ধসে একই পরিবারের দু’শিশুর মৃত্যু হয়েছে। কক্সবাজারেই দু’ লাখ মানুষ পানিবন্দী, পাহাড় ধসে দশজনের মৃত্যু ঘটে। পটিয়ায় শতাধিক মৎস্য পুকুর তলিয়ে গেছে। পিরোজপুরের ৩০ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। বরগুনার আমতলী ও তালতলীতে ঝড়ে স্কুলসহ শতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত এবং তিন লাখের বেশি মানুষ পানিবন্দী। বাগেরহাটে নতুন করে ৩০ গ্রাম প্লাবিত।
পাউবো জানায়, ব্রহ্মপুত্র-যমুনা ও দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের নদীসমূহের পানি বাড়ছে এবং গঙ্গা-পদ্মা ও সুরমা-কুশিয়ারার পানি হ্রাস পাচ্ছে। ব্রহ্মপুত্র-যমুনা ও সুরমা-কুশিয়ারা নদীর পানি আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত হ্রাস পেতে পারে। গঙ্গার পানি স্থিতিশীল এবং পদ্মার পানি আগামী ২৪ ঘণ্টায় বৃদ্ধি পেতে পারে।

আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, বাংলাদেশ ও সংলগ্ন এলাকায় লঘুচাপটি অবস্থান করছে। মৌসুমী বায়ুর অক্ষ ভারতের পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ হয়ে অতঃপর উত্তর-পূর্ব দিকে অসম পর্যন্ত বিস্তৃত। মৌসুমী বায়ু বাংলাদেশের ওপর সক্রিয়। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অতি প্রবল অবস্থায় রয়েছে। আজ শনিবার রাজশাহী, রংপুর, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম এবং সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ী দমকা/ঝড়ো হাওয়াসহ হাল্কা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া ঢাকা, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণ হতে পারে এবং রংপুর ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি বর্ষণ হতে পারে।

 

Post A Comment: