ভারতের পশ্চিমবঙ্গ অভিযোগ করছে যে তিস্তার একটি শাখা আত্রাই নদীতে ভারতকে না জানিয়েই বাঁধ দিয়ে পানি আটকে রেখেছে বাংলাদেশ। এর ফলে পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার একটা বড় অংশে কৃষিকাজ বন্ধ হয়ে যেতে বসেছে আর বালুরঘাট শহরে পানীয় জল সরবরাহতেও বিঘ্ন ঘটছে বলে অভিযোগ করেছে দেশটির রাজ্য সরকার। 

 
এবার বাংলাদেশের অভ্যন্তরে আত্রাই নদীতে বাঁধে ভারতের আপত্তি, বাংলাদেশের আত্রাই নদীতে বাঁধে আপত্তি ভারতের, atreyi_river

তিস্তার পানিবন্টন নিয়ে যখন আগের অবস্থানেই অনড় থেকে শুক্রবার ঢাকা সফরে এসেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী, সেইসময়েই, তাঁর সরকার আত্রাই নদীতে বাঁধের প্রসঙ্গ তুলল। পশ্চিমবঙ্গের সেচ দপ্তর বলছে বাংলাদেশের দিনাজপুর থেকে যেখানে সেটি আবার তাদের রাজ্যের দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় প্রবেশ করেছে, তার কিছুটা উজানে সম্প্রতি একটা কংক্রিটের বাঁধ তৈরী করেছে বাংলাদেশ। তিস্তারই শাখা নদী আত্রাইয়ের ওপর এই বাঁধ কিছুদিন আগে নজরে এসেছে রাজ্য সরকারের। পশ্চিমবঙ্গের সেচমন্ত্রী রাজীব ব্যানার্জী বলেন,  আমাদের না জানিয়েই বাংলাদেশের ভেতরে ওই বাঁধ দেওয়া হয়েছে যা আন্তর্জাতিক নিয়মের বিরোধী। এটা সম্প্রতি উপগ্রহ চিত্রের মাধ্যমে আমরা জানতে পেরেছি। বিস্তারিত রিপোর্ট মুখ্যমন্ত্রীকে দিয়েছি আর উনি প্রধানন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন। আর আমি ভারতের জলসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রীকেও জানিয়েছি।

তাঁর কাছে জানতে চেয়েছিলাম ঢাকা সফরে কি মুখ্যমন্ত্রী আত্রাই বাঁধের বিষয়টা তুলবেন? তাঁর জবাব ছিল, মুখ্যমন্ত্রী সবই জানেন। তবে ঢাকায় গিয়ে কোন কথাটা উনি বলবেন, সেটা উনি-ই ঠিক করবেন। দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার কুমারগঞ্জ এলাকার কুশমন্ডি থেকে নির্বাচিত বিধায়ক নর্মদা চন্দ্র জানান, তাঁরা প্রথমে বুঝতেই পারেন নি যে বাংলাদেশে বাঁধ তৈরীর ফলেই তাঁদের নদীটা শুকিয়ে যাচ্ছিল। 

রায় বলেন, আমরা কয়েকবছর ধরেই দেখছি যে নদী শুকিয়ে যাচ্ছে। প্রথমে আমাদের ধারণা ছিল যে প্রকৃতির নিয়মেই হচ্ছে এটা। কিন্তু তারপরে দেখা গেল বাংলাদেশের কৃষকরা আত্রাইয়ের জল ব্যবহার করছে, সেদিকে জল রয়েছে, অথচ আমাদের দিকটা শুকনো। তখনই উপগ্রহ চিত্রের মাধ্যমে দেখা গেল যে সীমান্তের প্রায় দু কিলোমিটার ভিতরে বাংলাদেশ একটা কংক্রিট বাঁধ তৈরী করেছে।' বিবিবিসি বাংলা

Post A Comment: