যে বদঅভ্যাসগুলো পুরুষের কখনোই পরিবর্তন করা সম্ভব নয়
যে বদঅভ্যাসগুলো পুরুষের কখনোই পরিবর্তন করা সম্ভব নয়

ছেলেদের মধ্যে কিছু বাজে অভ্যাস রয়েছে যা তার সঙ্গিনীর বিরক্তির বেশ বড় ধরণের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। এইসকল বাজে অভ্যাসগুলোর কারণেই অনেক সময় সম্পর্কে ঝগড়া শুরু হয়। এই ঝগড়া থেকেই টানাপোড়ন এসে যায় ভালোবাসার মধুর সম্পর্কে।


কিন্তু যতোই ঝগড়া হোক না কেন এই বদঅভ্যাসগুলো বাদ দিতে পারেন না ছেলেরা। কথা শুরু হলে মাঝে মাঝে নিজের ভুল মেনে নিয়ে সরি বলেন ঠিকই কিন্তু পরবর্তীতে একই কাজটি পুনরায় করতে দেখা যায়। ফলে পুনরায় ঝগড়া। সঙ্গিনী কখনো বলে এই বদঅভ্যাসগুলো দূর করতে পারবেন না। যদিও সকল পুরুষ এক রকম নন এবং সকলের মধ্যে এই অভ্যাসগুলো নেই তারপরও যদি পুরুষেরা নিজেরা নিজেদের ভুল উপলব্ধি করে নিজে থেকে অভ্যাসগুলো বদলানো তবেই তা সম্ভব।

মেয়েদের কাজকর্মকে ছোটো করে দেখা

অনেক পুরুষের মধ্যে এই বদঅভ্যাসটি লক্ষ্য করা যায়। তারা মেয়েদের কাজকর্মকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করে থাকেন। ঘরের কাজ কিংবা বাইরে অফিসের কাজ মেয়েরা যাই করুক না কেন অনেক পুরুষের ধারণা মেয়েরা কোনো কাজই করেন না আসলে। ঘর সংসার সামলানো কোনো কাজের মধ্যে পড়ে না বলেই ধারণা অনেক পুরুষের, তাই নিজের সঙ্গিনীকেও তুচ্ছতাচ্ছিল্য করেন অনেকে। আবার কর্পোরেট জগতে মেয়েদের কাজের দিকটাকে তাচ্ছিল্য করে বলেন, ‘রূপ দেখিয়ে কাজ হাসিল করে নিয়েছে’। এই ধরণের বদঅভ্যাস মানসিকতার পরিবর্তন না হলে পরিবর্তন করা সম্ভব নয়।

অযথা অজুহাত দেয়া

নানা সময়েই ছেলেদের সঙ্গিনীর কাছে অযথা অজুহাত দাড়া করাতে দেখা যায়। অকারণে একেক কাজের পেছনে একেক ধরণের অজুহাত দাড় করিয়ে ফেলেন ছেলেরা। কোন প্রশ্ন করার আগে থেকেই তাদের কাছে একটি অজুহাত তৈরি করা থাকে। প্রশ্ন করার সাথে সাথেই সেকারণে এইধরনের অজুহাত মূলক উত্তর পাওয়া যায়।

অকারণে মিথ্যে কথা বলা

নিজেকে বড় বলে জাহির করার জন্য বিশেষ করে ছেলেরা অকারণেই মিথ্যে কথা বলে থাকেন। এছাড়াও কোনো ভুল করে তা ঢাকার জন্য যদি ১০০ তা কথাও মিথ্যে বলতে হয় ছেলেরা তাতেই রাজি থাকেন, তারপরও নিজের ভুল স্বীকার করতে একেবারেই নারাজ। ধরা পড়ে গেলেও তার পেছনে আরও হাজারটা মিথ্যে কথার ফুলঝুরি ছুটিয়ে ফেলেন অনেক পুরুষই।

অন্য নারীর দিকে নজর দেয়া

সাথে নিজের প্রেমিকা বা স্ত্রী থাকলেও অন্য একজন নারীর দিকে নজর না দিয়ে থাকতে পারেন না অনেক পুরুষমানুষ। নিজের সঙ্গিনী বাদে পুরুষদের কাছে অন্য নারী অনেক বেশি আকর্ষণীয় থাকেন সব সময়ই। সেকারণেই নিজের সঙ্গিনীকে নিয়ে ঘুরতে বের হলেও পাশ দিয়ে কোন নারী কি ধরণের পোশাক পড়ে হেঁটে গেলেন তা ঠিকই নজরে পড়ে যায়।

Post A Comment: