গুগলের সিক্রেট অ্যাপার্টমেন্ট? কোথায় এটা? কী হয় এখানে? শিরোনাম দেখে অনেকের মনেই এমন প্রশ্ন জাগতে পারে। তাহলে শুনুন, গুগলের এই গোপন আস্তানার অবস্থান যুক্তরাষ্ট্রের পালো অ্যাল্টোতে। আর এই অ্যাপার্টমেন্টে বিভিন্ন উদ্ভট প্রযুক্তি নিয়ে অন্যদের সাথে আলোচনা করেন গুগলের দুই প্রতিষ্ঠাতা ল্যারি পেইজ এবং সের্গেই ব্রিন।
আর এই তথ্য উঠে এসেছে ইলোন মাস্ককে নিয়ে লেখা অ্যাশলে ভ্যান্সের লেখা বই 'ইলোন মাস্ক: টেসলা, স্পেস এক্স অ্যান্ড দ্য কোয়েস্ট ফর অ্যা ফ্যান্টাস্টিক ফিউচার' নামক বইতে। আর একদিন পরই বইটি বাজারে আসার কথা রয়েছে।

টেসলা এবং স্পেস এক্স সিইও ইলোন মাস্কের সাথে বেশ ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে গুগল সিইও ল্যারি পেইজের। সিলিকন ভ্যালির কোথাও থাকার জায়গা না পেলে ল্যারি পেইজের শরণাপন্ন হয়ে থাকেন মাস্ক, এমন কথারও উল্লেখ আছে এই বইতে। আর তাই মাস্কের সাথে নিয়মিতই প্রযুক্তিগত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলাপ আলোচনা করেন ল্যারি পেইজ।

ভ্যান্সের বইতে পাওয়া তথ্য থেকে জানা গেছে, গুগলের এই অ্যাপার্টমেন্টের জন্য আছে আলাদা শেফ যিনি এই গোপন অ্যাপার্টমেন্টে আমন্ত্রিত অতিথিদের জন্য খাবার তৈরি করে দিয়ে যান।

ইলোন মাস্কের একজন বন্ধু এবং ভেঞ্চার ক্যাপিটালিস্ট জর্জ জ্যাকারি সেই গোপন অ্যাপার্টমেন্টের একটি মিটিংয়ে উপস্থিত ছিলেন। অ্যাশলে ভ্যান্সকে তিনি জানান, "আমি একবার সেখানে গিয়েছিলাম। তখন দেখলাম মাস্ক সেখানে ইলেকট্রিক বিমান নিয়ে আলোচনা করছে যা উল্লম্বভাবে উড্ডয়ন করতে পারবে এবং অবতরণ করতে পারবে। তখন ল্যারি বলল তাহলে তো এই বিমানের ঢালু জায়গায় অবতরণ করার ক্ষমতাও থাকা উচিত। আর এরপর তারা কমিউটার বিমান তৈরি করার ব্যাপারে আলোচনা শুরু করে যা সবসময় পৃথিবীর চারদিকে ঘুরতে থাকবে আর এর মাধ্যমে খুবই কম সময়ে পৌঁছানো যাবে বিভিন্ন গন্তব্যে। আমি ভেবেছিলাম সবাই মজা করছে। আর তাই পরে আমি মাস্ককে জিজ্ঞাসা করলাম যে সে সত্যিই এমন কিছু করবে কিনা। আমাকে অবাক করে দিয়ে মাস্ক বলে সে সত্যিই এই কাজটি করবে।"
 

Post A Comment: