ভারতে তাপদাহে মৃতের সংখ্যা এক হাজার ছাড়িয়েছে। গতকাল পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ছিল আট শ'। দাবদাহে অধিকাংশ প্রাণহানি ঘটেছে দক্ষিণাঞ্চলীয় দুই রাজ্য অন্ধ্র প্রদেশ ও তেলেঙ্গানায়। বিবিসি এ খবর জানিয়েছে।

গত সপ্তাহ থেকে এ পর্যন্ত অন্ধ্র প্রদেশ ও তেলেঙ্গানায় এক হাজার ১১৮ জন মারা গেছেন। এর মধ্যে অন্ধ্র প্রদেশে আট শতাধিক এবং তেলেঙ্গানায় দুই শতাধিক মানুষ মারা গেছেন। ওডিশা ও পশ্চিমবঙ্গে মারা গেছেন আরো ২৪ জন।

শুধু মানুষ নয়, গরমের শিকার হচ্ছে পশু-পাখিও।


সাধারণত তেলেঙ্গানা রাজ্যের নালগোন্দার বাসিন্দারা গ্রীষ্মকালে ৪৪-৪৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে অভ্যস্ত।
কিন্তু এ বছর তাপমাত্রা তার চেয়ে দুই-তিন ডিগ্রি বেড়ে যাওয়া জীবন ওষ্ঠাগত হওয়ার জোগাড় হয়েছে।

ব্যবসায়ী রাবিন্দর রেড্ডি বিবিসিকে জানান, শহরে প্রচুর বাদুড় মরে যাচ্ছে। "গাছ থেকে পাতার মত মরে মরে নিচে পড়ছে বাদুড়।"

তিনি নিজে দুই শ'র মত মরা বাদুর দেখেছেন। ১৫-২০টি মৃত ময়ূরও দেখেছেন।

রাবিন্দর জানান, গরমে তার ব্যবসাও বন্ধের উপক্রম। তার ১৮ জন কর্মচারীর মধ্যে মাত্র চারজন কাজে আসছেন। দু'জন গরমে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে।

নালগোন্দার কৃষক আহমেদ পাশা জানান, গরমে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর এতটাই নিচে নেমে গেছে যে জমি চাষ করতে পারছেন না।

"কোনো কুয়ায় এক ফোঁটা পানি নেই।"

পানির অভাবে এবং গরমে ঘাস শুকিয়ে গেছে। ফলে গৃহপালিত গরু-মহিষকে ঠিকমত খাওয়া দিতে পারছেন না কৃষকরা। গরু মহিষদের দুধ কমে গেছে।

"আর এক সপ্তাহ বৃষ্টি না হলে আমরা শেষ হয়ে যাব। বৃষ্টির জন্য দিনরাত প্রার্থনা করছি।"

এদিকে দেশটির আবহাওয়া বিভাগ জানিয়েছে, আগামী কয়েকদিনে দেশটির কোনো কোনো অংশে তাপমাত্রা কমতে পারে।

প্রচণ্ড তাপদাহের কারণে লোকজনকে ঘরের ভেতর থাকার পরামর্শ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। পানি ও প্রচুর পানীয় পান করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

প্রতিবছর মে মাসে উত্তর ভারতে প্রবল গরম পড়ে। এবার তা মারাত্মক আকার ধারণ করেছে।

Post A Comment: